NASA: মহাকাশে রংমিলান্তি! রামধনু রঙের গ্রহের ছবি প্রকাশ করে চমক দিল নাসা

বামন গ্রহের চারপাশে যেন আবিরের রং মিশে তাকে উজ্জ্বল আকর্ষণীয় করে তুলেছে। শক্তিশালী টেলিস্কোপ (telescope)থেকে তোলা ছবিতে মহাকাশের (Space Beauty) অপরূপ সৌন্দর্য তুলে ধরে এবার বামন গ্রহ প্লুটোর রামধনু রং এর ছবি প্রকাশ করল নাসা।

ছবি দেখে চমকে উঠতে হয়। যেন সব রং মিশে গেছে গোলকে। রামধনু রঙে উজ্জ্বল বামন গ্রহ প্লুটোর (Pluto Rainbow Image) এমনি মোহময়ী ছবি প্রকাশ করল আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা (NASA)।

মহাকাশে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নানা রকমের সন্ধান আর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে নাসা (NASA)। উপগ্রহ চিত্রে বিভিন্ন সময় এমন সব ছবি ধরা পড়ে, যা দেখে বিস্ময়ের ঘোর কাটে না। ফের এমনই এক ছবি প্রকাশ করেছে নাসা। যেখানে দেখা যাচ্ছে বামন গ্রহের চারপাশে যেন আবিরের রং মিশে তাকে উজ্জ্বল আকর্ষণীয় করে তুলেছে। শক্তিশালী টেলিস্কোপ (telescope)থেকে তোলা ছবিতে মহাকাশের (Space Beauty) অপরূপ সৌন্দর্য তুলে ধরে এবার বামন গ্রহ প্লুটোর রামধনু রং এর ছবি প্রকাশ করল নাসা, যাতে এক এক রংয়ে প্লুটোর আলাদা আলাদা ভূ-খণ্ডকে চিহ্নিত করা হয়েছে। বুধবার নাসার ওয়েবসাইট থেকে এই নিয়ে একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। তবে সৌরমণ্ডলের একেবারে কিনারায় থাকা প্লুটোর গায়ে এমন রামধনু রংয়ের প্রলেপ কী ভাবে সম্ভব? সাধারণ মানুষের মনে ওঠা এই প্রশ্নেরও ব্যাখ্যা করেছে নাসা। মহাকাশ গবেষণা সংস্থা জানিয়েছে, এটা আকস্মিকভাবে ঘটেনি। বরং তাদের কার্যপ্রণালীর অংশমাত্র। প্লুটোর গায়ে রংমিলান্তি ঘটেনি। বরং নিউ হরাইজন কর্মসূচির আওতায় বিজ্ঞানীরা রংয়ের প্রলেপ মাখিয়ে প্লুটোর সমস্ত অঞ্চলকে পৃথক ভাবে চিহ্নিত করেছেন। আসলে প্লুটোর ভূপৃষ্ঠ অত্যন্ত জটিল এবং বৈচিত্রময়।  এলোমেলো পর্বত, বিস্তৃত উপত্যকা, বড় বড় গর্ত , ভূমিখন্ড সবটাই রয়েছে সেখানে। রং এর মাধ্যমে সেগুলোকেই স্পষ্ট করার ভাবনা নাসার।

উল্লেখ্য আজ থেকে প্রায় বছর ১৬ আগে নিউ হরাইজন মহাকাশ কর্মসূচির সূচনা করে নাসা। তারই অংশ হিসেবে প্লুটো এবং তার উপগ্রহের চারিদিকে প্রদক্ষিণ করে ছবি তোলার জন্য নাসার মহাকাশযান নিযুক্ত করা হয়। ২০১৫ সাল থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত মহাশূন্যেই আছে সেই যান। সেখান থেকেই পাঠান ছবি প্রকাশ করে চমকে দিল নাসা।


Previous article৯ অগাস্ট আদিবাসী দিবস পালন, সারি ধর্ম রক্ষার ডাক দিয়ে বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষ বীরবাহার