ফাঁসতে চলেছেন পার্থ ঘনিষ্ঠ ছাত্রনেতারা? অর্পিতার টালিগঞ্জের ফ্ল্যাটের ভিজিটারস বুকে নজর ইডির

তদন্তকারীরা জানতে চান কাদের মাধ্যমে কোনও কোনও জায়গা থেকে এই বিপুল পরিমাণ টাকা কোথায় যেত? কীভাবে অর্পিতার ফ্ল্যাটগুলিতে নিরাপদে পৌঁছে যেত কোটি কোটি নগদ? কে বা কারা এতো নৈপুণ্যতার সঙ্গে সেই টাকা পৌঁছে দিত? এখন এই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে ইডির কাছে

পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর ঘনিষ্ঠ বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায় এসএসসি দুর্নীতি কাণ্ডে গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে উঠে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে তোলা টাকা কীভাবে পার্থর কাছে পৌঁছে যেত তার সূত্র খুঁজছে তদন্তকারী সংস্থা ইডি। আরও একটি চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে বলে খবর। শুধু শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি নয়, পার্টিতে নিজের পদের ক্ষমতার অপব্যবহার করে পার্থ অনৈতিকভাবে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে অনেককে ভোটে দাঁড়ানোর টিকিট বিলি করেছেন।

সবমিলিয়ে তদন্তকারীরা জানতে চান কাদের মাধ্যমে কোনও কোনও জায়গা থেকে এই বিপুল পরিমাণ টাকা কোথায় যেত? কীভাবে অর্পিতার ফ্ল্যাটগুলিতে নিরাপদে পৌঁছে যেত কোটি কোটি নগদ? কে বা কারা এতো নৈপুণ্যতার সঙ্গে সেই টাকা পৌঁছে দিত? এখন এই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে ইডির কাছে।

সূত্রের খবর, তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, পার্থ ঘনিষ্ঠ বেশ কয়েকজন প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্রনেতার মাধ্যমে খুব গোপনীয়তার সঙ্গে এই কাজ করা হতো। ইডির স্ক্যানারে এবার সেই ছাত্রনেতারা। ইতিমধ্যেই পার্থ ঘনিষ্ঠ কমপক্ষে পাঁচজন ছাত্রনেতার আয়-ব্যয়ের ও সম্পত্তির খোঁজখবর নিতে শুরু করেছে ইডি। পার্থকেও এই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এবং সেই সূত্র ধরেই ওই ছাত্রনেতাদের কাছে পৌঁছতে চাইছেন তদন্তকারীরা।

ইডি জানতে পেরেছে, ওই ছাত্রনেতাদের মধ্যে অন্তত দু’জনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের।শুধু নাকতলার বাড়ি নয়, ছায়াসঙ্গীর মতো ওই দুই ছাত্রনেতা পার্থর সমস্ত কর্মসূচিতে থাকতো। যেখানেই পার্থ যেতেন, সেখানেই তাঁদের দেখা যেতো। সূত্র ধরে এবার ওই ছাত্রনেতাদের কাছে পৌঁছতে চাইছে ইডি।

যেভাবে তদন্তে গতি বাড়িয়েছে ইডি, তাতে পার্থ ঘনিষ্ঠ সংশ্লিষ্ট ছাত্রনেতাদের অস্বস্তি যে বেড়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাঁদের কাছে পৌঁছতেই এবার কোমর বেঁধে নেমেছেন তদন্তকারীরা। তারই অঙ্গ হিসেবে মনে করা হচ্ছে আজ, শনিবার ফের অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের হরিদেবপুরের বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের হানা। নজরে ডায়মন্ড সিটি সাউথের ফ্ল্যাটের ভিজিটরস বুক এবং সেখানকার সিসিটিভি ফুটেজ। অর্পিতার ফ্ল্যাটে কাদের-কাদের যাতায়াত ছিল, কবে কখন কে এসেছে, তা খতিয়ে দেখবেন ইডির আধিকারিকরা। তাঁরা একপ্রকার নিশ্চিত পার্থ ঘনিষ্ঠ ছাত্রনেতাদের অর্পিতার ফ্ল্যাটে নিয়মিত যাতায়াত ছিল। এবং তাঁদেরই মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা পৌঁছে যেত অর্পিতার ফ্ল্যাটে। ফলে এদিন অর্পিতার আবাসনে ফের ইডির হানার মধ্যে দিয়ে এই তদন্তের মোড় ঘুরে যেতে পারে।

উল্লেখ্য, এই ফ্ল্যাট থেকেই ২১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা-সহ প্রচুর বিদেশি মুদ্রা, গয়না ও গুরুত্বপূর্ণ নথি উদ্ধার হয়েছিল। এদিকে অর্পিতাকে লাগাতার জেরা করেও একাধিক গুরুত্বপূর্ণ তথ্যও মিলেছে বলে খবর। এমন পরিস্থিতিতে ইডির নজরে অর্পিতার ফ্ল্যাটের ভিজিটার্স বুক এবং সিসিটিভি ফুটেজ। এগুলি খতিয়ে দেখে টাকার পাহাড়ের উৎসের সন্ধান মিলতে পারে বলে মনে করছে ইডি কর্তারা।

আরও পড়ুন- হাওড়ায় গাড়িতে উদ্ধার বিপুল পরিমাণ টাকা, জালে ঝাড়খন্ডের ৩ কংগ্রেস বিধায়ক

 

 

Previous articleIndia Team: জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ঘোষণা হল ভারতের একদিনের দল, নেতৃত্বে ধাওয়ান, বিশ্রামে রোহিত-বিরাট