‘আলিপুর মিউজিয়ামকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ করতে চাই’, উদ্বোধন করে বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

স্বাধীনতার ৭৫ বছরে রাজ্যবাসীকে বিরাট উপহার দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। পুজোর আগে দরজা খুলল বন্ধ আলিপুর সংশোধনাগারে তৈরি ‘ইন্ডিপেন্ডেন্স মিউজিয়াম’। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসের জীবন্ত দলিল। যার প্রতিটি পরতে জড়িয়ে আছে দেশের বীর সন্তানদের আত্মদানের অমৃত গাথা। যাঁদের অধিকাংশই এই বাংলা মায়ের সন্তান। নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু থেকে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস। বিধান চন্দ্র রায় থেকে যতীন্দ্র মোহন সেনগুপ্ত। কে নেই সেই তালিকায়? বুধবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে এসে মুখ্যমন্ত্রী নিজেও বাংলা মায়ের সেই বীর সন্তানদের কথা সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করেছেন। একই সঙ্গে অঙ্গীকার করেছেন ইতিহাসকে বিকৃত করার প্রয়াস কে যে কোনও মূল্যে রোধ করার।

তিনি জানিয়েছেন, আলিপুর সংশোধনাগারকে (Alipore Museum) ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট’ হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে। আন্দামানের সেলুলার জেলের মতো এখানেও লাইট অ্যান্ড সাউন্ড শো চালু হবে। প্রায় ৪০ মিনিটর এই শো শোনা যাবে বাংলা, হিন্দি ও ইংরেজিতে। ভাষ্যপাঠে থাকছেন খ্যাতনামা কবি ও গীতিকার জাভেদ আখতার। ব্যবহার করা হয়েছে নানা রকম এলইডি লাইট। থাকবে লেজার লাইট, ডিমার, লেজার হাউজিং প্রোটেকশন কভার। সাউন্ডে ব্যবহার করা হবে মিক্সার অডিও ও ডিজিটাল সিগন্যাল প্রসেসর।

উদ্বোধনের পর মিউজিয়াম ঘুরে দেখা গেল সত্যি এটিকে আগা গোড়া ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের তকমা পাওয়ার উপযুক্ত ভাবে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। আলিপুর সংশোধনাগারে এক সময়ে বন্দি ছিলেন জওহরলাল নেহরু, চিত্তরঞ্জন দাস, যতীন্দ্রমোহন সেনগুপ্ত, সুভাষচন্দ্র বসু, বিধানচন্দ্র রায়ের মতো ব্যক্তিত্বরা। তাঁরা জেলের যে সব কুঠুরিতে থাকতেন, সেগুলিকে আগেই হেরিটেজ ঘোষণা করা হয়েছে। সেই সব কুঠুরির সামনে তাঁদের মূর্তি এবং ফলক বসানো হয়েছে। স্বাধীনতা সংগ্রামে তাঁদের কী অবদান, সংক্ষেপে তা তুলে ধরা হবে।

আলিপুর জেলের ফাঁসিকাঠে মৃত্যুবরণ করেছিলেন দীনেশ গুপ্ত, প্রমোদরঞ্জন চৌধুরী, দীনেশ মজুমদারের মতো স্বাধীনতা সংগ্রামী। সেই ফাঁসির মঞ্চটিকে নতুন করে সাজানো হয়েছে। মিউজিয়ামের দরজা খুললেই সেগুলি কাছ থেকে দেখতে পারবেন সাধারণ মানুষ। এখানে যে ওয়াচটাওয়ার ছিল, সেটিকেও মেরামত করা হয়েছে। লাগানো হয়েছে বাহারি আলো। প্রতিটি কক্ষে স্মৃতিফলকে সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। একইসঙ্গে রয়েছে একটি কফি হাউস এবং রেস্তোরাঁ। মূলত দেশ-বিদেশের অতিথিদের স্বাগত জানাতে উপযুক্ত ভাবে সেটি তৈরি করা হয়েছে। তবে সাজসজ্জা করা হয়েছে মূল ভাবনার সঙ্গে সংগতি রেখেই।

আরও পড়ুন- বলিউডে ফের মৃত‍্যুসংবাদ, প্রয়াত অশোক কুমার-কন‍্যা ভারতী জাফরি

Previous articleবলিউডে ফের মৃত‍্যুসংবাদ, প্রয়াত অশোক কুমার-কন‍্যা ভারতী জাফরি