ভারতে মেটার প্রধান পদে সন্ধ্যা দেবনাথন, ১ জানুয়রি থেকেই শুরু নয়া ইনিংস  

সন্ধ্যা দেবনাথনের প্রোফাইল ঘাঁটলে দেখা যাচ্ছে কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে অন্ধ্র বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিটেক করেছেন সন্ধ্যা। তারপর এমবিএ করেন এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়াশোনা করেছেন তিনি। কেরিয়ারের শুরুতে সিটিগ্রুপ ও স্ট্যান্ডার্ড চার্টার ব্যাঙ্কে কাজ করেছেন সন্ধ্যা।

এক ধাক্কায় বিপুল পরিমাণ কর্মী ছাঁটাইয়ের পথে হেঁটেছে ফেসবুকের মূল সংস্থা মেটা (Facebook Meta)। বৃহস্পতিবার ভারতে সংস্থার নয়া প্রধানের নাম ঘোষণা করল মেটা। সন্ধ্যা দেবনাথন (Sandhya Debnathan) ভাইস প্রেসিডেন্ট (Vice President) হিসেবে নিযুক্ত (Appointed) হলেন। বৃহস্পতিবার এই কথা মেটার তরফে আনুষ্ঠানিকভাবে (Official Announcement) ঘোষণা করা হয়েছে। ভারতে ফেসবুকের ব্যবসা দেখবেন সন্ধ্যা। পাশাপাশি ভারতের প্রথম সারির সংস্থা, ব্র্যান্ড, বিজ্ঞাপনদাতা এবং কনটেন্ট ক্রিয়েটারদের (Content Creator) সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক তৈরির  মাধ্যমে মেটার আয় বৃদ্ধির বিষয়টিও তিনি খতিয়ে দেখবেন। ২০২৩ সালের পয়লা জানুয়ারি থেকে নতুন দায়িত্বভার (Responsibility) কাঁধে তুলে নেবেন তিনি। সম্প্রতি অজিত মোহন (Ajit Mohan) পদত্যাগ করার পরে তাঁর জায়গায় আনা হয় সন্ধ্যা দেবনাথনকে।

সন্ধ্যা দেবনাথনের প্রোফাইল ঘাঁটলে দেখা যাচ্ছে কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে (Chemical Engineering) অন্ধ্র বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিটেক (B Tech) করেছেন সন্ধ্যা। তারপর এমবিএ (MBA) করেন এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়েও (Oxford University) পড়াশোনা করেছেন তিনি। কেরিয়ারের শুরুতে সিটিগ্রুপ ও স্ট্যান্ডার্ড চার্টার ব্যাঙ্কে কাজ করেছেন সন্ধ্যা। বেশ কয়েকটি নামী সংস্থার ডিরেক্টর হিসাবেও দায়িত্ব সামলেছেন। এছাড়া সন্ধ্যা দেবনাথন ২০১৬ সালে মেটায় যোগ দেন। সিঙ্গাপুর ও ভিয়েতনামে সংস্থার ব্যবসার কাজ দেখতেন তিনি। পাশাপাশি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় মেটার ই কমার্স সংক্রান্ত কাজকর্মও তিনি দেখভাল করতেন। এরপর ২০২০ সালে তিনি ইন্দোনেশিয়া যান। সেখানে এশিয়া প্যাসিফিক এলাকায় গেমিং টিমকে নেতৃত্বও দেন।

মেটার চিফ বিজনেস অফিসার মারনে লেভাইন (Marne Levine) জানিয়েছেন, ভারতে আমাদের নতুন নেতা হিসেবে সন্ধ্যাকে স্বাগত জানাচ্ছি। বেশ কিছুদিন ধরেই বিপুল সংখ্যক কর্মী ছাঁটাই করছে মেটা। এক ধাক্কায় ১১ হাজারেরও বেশি কর্মী ছাঁটাই করেছে তারা। যা সংস্থার মোট কর্মী সংখ্যার ১৩ শতাংশ। যার পর মেটার চিফ এক্সিকিউটিভ মার্ক জুকারবার্গ (Mark Zukerberg) একটি ব্লগ পোস্টে দাবি করেন, সংস্থার উন্নতির জন্যই ঐতিহাসিক কর্মী ছাঁটাইয়ের পদক্ষেপ করেছেন। তবে গণছাঁটাইয়ের পর দুঃখও প্রকাশ করেন জুকারবার্গ।

Previous articleমৌলবাদের সমর্থকদের পৃথিবীর কোন দেশে স্থান নেই: সন্ত্রা*সবাদের বিরুদ্ধে সরব মোদি