অনুব্রতর গাড়িতে লালবাতির ব্যবহার নিয়ে প্রশ্ন! সোমবারের মধ্যে রাজ্যের মতামত জানতে চাইল হাইকোর্ট

বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের (Anubrata Mondal) গাড়িতে লালবাতি কেন? এই প্রশ্ন তুলে কলকাতা হাইকোর্টে (Calcutta High Court) দায়ের হয়েছিল মামলা। মঙ্গলবার সেই মামলায় রাজ্যের কাছেই জবাব তলব করল হাইকোর্ট। এদিন আদালত রাজ্যের কাছে জানতে চায়, এই সব লাল ও নীল বাতি (Red and Blue Beacon Lights) লাগানো গাড়ি কী বৈধ? আগামী সোমবারের মধ্যে রাজ্যকে মতামত জানানোর নির্দেশ দিলেন হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তবের ডিভিশন বেঞ্চ।

পাশাপাশি এদিন প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ রাজ্যের কাছে জানতে চান লালবাতি ব্যবহার করলে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪১৯ ধারা অনুযায়ী মামলা রুজু করে পদক্ষেপ নেওয়ার কথা। কিন্তু এতদিন পর্যন্ত কত মামলা রুজু হয়েছে রাজ্যে? উল্লেখ্য, গত এপ্রিলেই অনুব্রতের গাড়িতে লালবাতির ব্যবহার নিয়ে দায়ের হয়েছিল জনস্বার্থ মামলাটি। সিবিআইয়ের তলব মেনে গত ৬ এপ্রিল অনুব্রত বীরভূম থেকে একটি লালবাতি দেওয়া গাড়িতে কলকাতায় এসেছিলেন। তারপর অবশ্য সিবিআইয়ের (CBI) দফতরে না গিয়ে চলে গিয়েছিলেন এসএসকেএম (SSKM) হাসপাতালে।

একটি রাজনৈতিক দলের জেলা সভাপতি হয়ে অনুব্রত নিজের গাড়িতে লালবাতির ব্যবহার করেন কীভাবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা (PIL) দায়ের করেন আইনজীবী তথা বিজেপি নেতা তরুণজ্যোতি তিওয়ারি (Tarunjyoti Tiwari)। তিনি প্রশ্ন তোলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যেখানে নিজের গাড়িতে লাল বা নীলবাতির ব্যবহার করেন না, এমনকি কোনও মন্ত্রীও এ ধরনের গাড়ি চড়েন না, সেখানে তৃণমূলের বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত সেই অনুমতি পেলেন কীভাবে? মঙ্গলবার সেই সব অভিযোগের ভিত্তিতেই রাজ্যের মতামত জানতে চেয়েছে আদালত।

আরও পড়ুন- খড়গপুর আইআইটি’তে ছাত্র মৃ*ত্যু! হাইকোর্টে জমা পড়ল রিপোর্ট, পরবর্তী শুনানি ৩০ নভেম্বর

 

 

Previous articleখড়গপুর আইআইটি’তে ছাত্র মৃ*ত্যু! হাইকোর্টে জমা পড়ল রিপোর্ট, পরবর্তী শুনানি ৩০ নভেম্বর