যোগী রাজ্যে শ্রদ্ধা হ*ত্যাকাণ্ডের ছায়া, স্ত্রীকে টুকরো টুকরো করে মাঠে ছড়াল স্বামী

বছর দশেক ১০ আগে বারাবাকিঁর জ্যোতির সঙ্গে সিতাপুরের পঙ্কজের বিয়ে হয়। বেশ ভালোই চলছিল তাদের দাম্পত্য জীবন। কিন্তু সম্প্রতি সেই সম্পর্কে চিড় ধরে

ফের হাড়হিম করা হত্যাকাণ্ড। ফের দিল্লির শ্রদ্ধা ওয়াকারের নারকীয় হত্যকাণ্ডের ছায়া। একইভাবে খুনের পর দেহ টুকরো টুকরো করে প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা। এবার ঘটনা যোগী আদিত্যনাথের ডাবল ইঞ্জিন রাজ্য উত্তরপ্রদেশে।

অভিযোগ, নিজের স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুন করে মৃতদেহকে টুকরো টুকরো করে তা মাঠে ফেলে আসে অভিযুক্ত স্বামী। ঘটনাটি ঘটছে, যোগী রাজ্যের সিতাপুর জেলার গুলহেরিয়া গ্রামে। নিহতের নাম জ্যোতি দেবী (৩৮)। অভিযোগ, জ্যোতির স্বামী পঙ্কজ তাঁকে প্রথমে শ্বাসরোধ করে খুন করে। এরপর নিজের এক বন্ধুর সাহায্যে জ্যোতির দেহ টুকরো টুকরো করে একটি মাঠে ছড়িয়ে দেয়। এভাবেই নিজের অপকর্মের প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা করেছিল পঙ্কজ।

পারিবারিক সূত্রে খবর, বছর দশেক ১০ আগে বারাবাকিঁর জ্যোতির সঙ্গে সিতাপুরের পঙ্কজের বিয়ে হয়। বেশ ভালোই চলছিল তাদের দাম্পত্য জীবন। কিন্তু সম্প্রতি সেই সম্পর্কে চিড় ধরে। জ্যোতি বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছে এই সন্দেহ শুরু হয় পঙ্কজের মনে। যা নিয়ে প্রায়শই দু’জনের মধ্যে অশান্তি-বিবাদ লাগতে থাকে।

এরপরই স্ত্রী জ্যোতিকে খুন করার সিদ্ধান্ত নেয় পঙ্কজ।শ্বাসরোধ করে খুন করে সে। ঠান্ডা মাথায় এক বন্ধুর সঙ্গে প্রমাণ লোপাট করে। দেহকে টুকরো টুকরো করে কেটে বাড়ির পাশে একটি মাঠে ছড়িয়ে দেয়। তবে এতকিছু করেও শেষরক্ষা হয়নি পঙ্কজের। ইতিমধ্যেই পঙ্কজ ও তার বন্ধুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সূত্রের খবর, গত ৮ নভেম্বর এক মহিলার বেশকিছু দেহাংশ পায় সিতাপুর থানার পুলিশ। তার কিছুদিন পরেই এক মহিলার মাথাও উদ্ধার হয়। ওই মহিলার স্কেচ বানিয়ে আশেপাশের থানাগুলিতে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। তা দেখেই বারাবাকিঁর এক মহিলা থানায় যোগাযোগ করে ও মৃতের পরিহিত পোশাক দেখে জ্যোতি হিসেবে চিহ্নিত করে। এরপর পঙ্কজকে জিজ্ঞাসাবাদ করা শুরু হলে, সে তার স্ত্রীয়ের উধাও হওয়ার সন্তোষজনক উত্তর দিতে পারেনি। অবশেষে, জেরায় ভেঙে পড়ে সব স্বীকার করে নেয় সে। এরপরই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

 

Previous articleপুরুলিয়ায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে গেল স্কুল বাস, আহত ৩৪ পড়ুয়া