প্রতিশ্রুতি মতো বুধবার হিঙ্গলগঞ্জে ১৫ হাজার বস্ত্র ও অন্যান্য পরিষেবা প্রদান হল সফলভাবে 

মঙ্গলবার উঃ চব্বিশ পরগনা জেলার সুন্দরবনের হিঙ্গলগঞ্জে সমসেরনগরের সরকারি পরিষেবা প্রদান অনুষ্ঠান থেকে জেলার জন্য একগুচ্ছ প্রকল্পের সুচনার পাশাপাশি ১৫ হাজার মানুষের জন্য বস্ত্র বিলির ব্যাবস্থা করা হয়েছিলে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের হাতে হাজারের উপর মানুষের হাতে বস্ত্র তুলে দেন। এরই পাশাপাশি প্রশাসনিক, আধিকারিক ও জনপ্রতিনিধিদের সক্রিয় ভূমিকায় বুধবার সব ধরনের পরিষেবা দ্রুত দেওয়ার বার্তা দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

বলাবাহুল্য বুধবার সমসেরনগরের মাঠ থেকে সান্ডেরবিল,কালিতলা,সাহেবখালি,যোগেসগজ্ঞ,রুপামারি,খুলনা,বীশপুর,গোবিন্দঘাটি,হিঙ্গলগজ্ঞ,দুলদুলি অঞ্চলবাসীর জন্য উপহার সামগ্রী ব্যবস্থাপনায় প্রশাসনিক আধিকারিকদের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদের দীর্ঘ সময় কাজে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার ওই মঞ্চ থেকে নতুন জেলা সুন্দরবন ঘোষণার পাশাপাশি বনবিবি মন্দিরকে ঘিরে পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন করতে জেলা প্রশাসনকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন  মুখ্যমন্ত্রী ।

হিঙ্গলগঞ্জের মাটিতে দাঁড়িয়ে এলাকাবাসীর সুবিধার্থে বাসের সংখ্যা বাড়ানো, স্বাস্থ্যসাথী,কন্যাশ্রী,লক্ষীর ভান্ডার, দুয়ারে সরকার সহ সমস্ত পরিষেবার সুবিধা বিষয়ে উপভোক্তাদের বুঝিয়ে দেন। ওই জনসভায় রাজ্যের উচ্চ পর্যায়ের আধিকারিকদের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।
বুধবারের অনুষ্ঠানে  হাজির ছিলেন বনমন্ত্রী  জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, জেলাশাসক  শরদ কুমার দ্বিবেদী, বিধায়ক  নারায়ন গোস্বামী,দেবেশ মন্ডল, সুকুমার মাহাতো, রফিকুল ইসলাম, জেলা পরিষদের বন ও ভূমি স্থায়ী সমিতির কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদ, অতিরিক্ত জেলাশাসক সামা পারভিন,ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য, তাহেরুজ্জমান,মহাকুমা শাসক সোমা সাউ, মৌসুম বাবু সহ জেলা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিভিন্ন সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক ও জনপ্রতিনিধিরা।

Previous articleফের পুরনো নিয়মে দিল্লি বোর্ডের পরীক্ষা, ঘোষিত ICSE ও ISC পরীক্ষার সূচি