কড়া নিরাপত্তায় রেড রোডে সাধারণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ, প্রস্তুতি সম্পূর্ণ

এবারেও বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজে অভিবাদন গ্রহণ করবেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এবার কোভিডের চোখ রাঙানি নেই । তাই বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় ৭৪ তম সাধারণতন্ত্র দিবসে মেতে উঠতে প্রস্তুত গোটা রাজ্য। এবারেও বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজে অভিবাদন গ্রহণ করবেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দেড়ঘণ্টার অনুষ্ঠান উপভোগ করার সুযোগ পাবেন সাধারণ মানুষও। সেনা বাহিনীর কুচকাওয়াজ, সমরাস্ত্রের প্রদর্শনী ছাড়াও রাজ্যে সরকারের তিনটি সুসজ্জিত ট্যাবলো অংশ নেবে বলে
প্রশাসনিক সূত্রে জানা গেছে।এর মধ্যে দুর্গাপুজো নিয়ে একটি বিশেষ ট্যাবলো থাকছে। এছাড়াও রাজ্য পুলিশের তরফে একটি ট্যাবলো এবং যুব কল্যাণ দফতরের তরফে একটি ট্যাবলো থাকবে। বেলা ১০ টা থেকে কুচকাওয়াজ শুরু হবে।

এদিকে সাধারণতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে শহর জুড়ে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কুচকাওয়াজের অনুষ্ঠানে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকছেন প্রায় ২৫০০ পুলিশ কর্মী। কলকাতা পুলিশের এসিস্ট্যান্ট কমিশনার এবং ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার প্রায় ৯০ জন পুলিশ আধিকারিক অনুষ্ঠান দেখভালের দায়িত্বে থাকবেন। মহড়া চলাকালীন ড্রোনের মাধ্যমে নজরদারির পাশাপাশি ক্লোজ- সার্কিট ক্যামেরায় কড়া নজরদারি ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়াও আলিপুর চিড়িয়াখানা, ভিক্টোরিয়া মোমোরিয়ালের মতো শহর কলকাতার দর্শনীয় স্থান ও শপিংমল গুলিতে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে ।বিভিন্ন হোটেল, রেস্তোরা, গেস্টহাউস, অতিথিশালাগুলিতে তল্লাশি চালানো নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিন দুপুর থেকে বৃহস্পতিবার কুচকাওজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত রেড রোড ছাড়াও লাগোয়া কিছু রাস্তা বন্ধ রাখা হয়েছে।রেড রোড বন্ধ থাকার সময় যান চলাচলের জন্য বিকল্প রাস্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি কলকাতা পুলিশের সবকটি থানাকে বিশেষ সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
ওই দিন কাঁটায় কাঁটায় সকাল পৌনে ১০টায় আসবেন রাজ্যপাল সি ভি আনন্দ বোস। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশ মেমোরিয়াল মূর্তির সামনে থেকে পায়ে হেঁটে রেড রোডে প্রবেশ করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরই শুরু হবে দেড় ঘন্টার কুচকাওয়াজ।

 

Previous articleচূড়ান্ত ‘অসভ্যতামি’! আইএসএফ-র মিছিলকে ‘অবাঞ্ছিত’ কটাক্ষ কুণালের