বনগাঁ পুরসভা নিয়ে হাইকোর্টেরও মুখ পুড়ল বিজেপির! খারিজ গেরুয়া শিবিরের “অবৈধ” আর্জি

বনগাঁ পুরসভার আস্থা ভোট নিয়ে বিজেপির আর্জি খারিজ করল কলকাতা হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবারের আস্থা ভোটকে অবৈধ ঘোষণা করার জন্য হাইকোর্টের দরজায় কড়া নেড়েছিল বিজেপি। বিচারপতি শেখর ববি শরাফের এজলাসে এদিনই এই মামলাটি ওঠে। কিন্তু সওয়াল-জবাবের পর বিজেপির আর্জি খারিজ করেন বিচারপতি।

আরও পড়ুন-‘Talk To Mayor’র সহযোগিতায় মশার আঁতুড়ঘর সাফ

এদিন শুনানি চলাকালীন বিচারপতি বিজেপির আইনজীবীকে প্রশ্ন করেন, “আপনারা কেন জরুরি ভিত্তিতে এই মামলার শুনানি চান, তা প্রমাণ করুন। এই মামলার কেন দ্রুত শুনানির প্রয়োজন রয়েছে?” তখন আইনজীবি বলেন, “আজ বনগাঁ পুরসভার আস্থা ভোট বৈধ নয়।” বিচারপতি আবারও প্রশ্ন করেন, “আজ যে আস্থা ভোট হওয়ার কথা, তা আপনারা 30 তারিখই জানতে পেরে গিয়েছিলেন। তাহলে কেন 5 সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করলেন। আগেই আদালতে আসতে পারতেন।” তখন বিজেপির তরফ থেকে বলা হয়, “আমরা গতকাল অর্থাৎ 4 সেপ্টেম্বরই নোটিশ পেয়েছি স্পিড পোস্টে।”

এরপরই বিজেপির তরফে বিচারপতিকে বলা হয়, এই আস্থা ভোট অবৈধ। কারণ, যাঁরা চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্যের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছিলেন, তাঁরাই এদিন ফের তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। তাহলে এই ভোট কীভাবে বৈধ হয়?

বিচারপতি তখন বলেন, “কারও মন কীভাবে আপনি পরিবর্তন করতে পারেন! তার ওপর আইনের কোনও হাত নেই। তাছাড়া অনাস্থা বৈঠক একটি আইনসম্মত বিষয়। তা ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে। সেটা এখন বন্ধ করি কীভাবে? ”

এরপরই বিচারপতি বিজেপিকে স্পষ্ট জানিয়ে দেন, “আপনাদের কথায় যে আর্জেন্সি রয়েছে, তা বোঝা যাচ্ছে না।” এবং মামলাটি ফের রেগুলার বেঞ্চেই পাঠিয়ে দেন বিচারপতি শেখর ববি শরাফ।

আরও পড়ুন-সিপিএম নেতা তারিগামিকে শ্রীনগর থেকে দিল্লিতে নিয়ে আসার নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

প্রসঙ্গত, বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের নির্দেশে, বৃহস্পতিবার উত্তর 24 পরগনার বারাসাতে জেলাশাসকের দফতরে বনগাঁ পুরসভার নতুন করে আস্থা ভোট হয়। পুরনো আস্থা ভোটটি খারিজ করে দিয়েছিলেন বিচারপতি।

উল্লেখ্য, 22 আসনের বনগাঁ পুরসভায় এগিয়ে ছিল তৃণমূল কংগ্রেস৷ 13 জন কাউন্সিলর রয়েছেন তৃণমূলের পক্ষে৷ তৃণমূলকে সমর্থন জানিয়েছেন একজন কংগ্রেস কাউন্সিলরও৷ আস্থা ভোটে অংশ নেয়নি বামেদের এক কাউন্সিলর। আস্থা ভোটে হাজির ছিলেন না বিজেপি কাউন্সিলররাও। ফলে একতরফা ভোটে 14-0 ব্যবধানে হাসতে হাসতে জয় পায় শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস।

আরও পড়ুন-এবার সুজনের হাত ধরে প্রকাশিত হল “মুখ্যমন্ত্রীকেই বলছি”