শিবসেনাকে সমর্থনে অনিচ্ছুক সোনিয়া?

মহারাষ্ট্র কংগ্রেসের একটা বড় অংশ চাইছে বিজেপিকে শায়েস্তা করতে শিবসেনাকে সরকার গঠনে সাহায্য করুক কংগ্রেস ও এনসিপি। বিজেপিকে রাজ্যের ক্ষমতা থেকে দূরে রাখতে শিবসেনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে বাইরে থেকে সমর্থন করলে এনডিএ-র মধ্যেও ফাটল তৈরি করা যাবে। মহারাষ্ট্র কংগ্রেসের অন্যতম নেতা ও রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী পৃথ্বীরাজ চৌহান বলেছেন, শিবসেনা আমাদের সমর্থন চেয়ে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পাঠালেই আমরা দিল্লিতে আলোচনা শুরু করব। কিন্তু জানা যাচ্ছে, খোদ কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীরই শিবসেনাকে সমর্থনের প্রশ্নে আপত্তি রয়েছে। কারণটা অবশ্যই মতাদর্শগত। কংগ্রেস হাইকম্যান্ডের মতে, শিবসেনার মত কট্টর হিন্দুত্ববাদী দলকে সমর্থন করলে সর্বভারতীয় রাজনীতিতে সমস্যা হতে পারে। সংখ্যালঘুরাও কংগ্রেসের উপর বিরূপ হবেন। তাঁদের বক্তব্য, ঠিক যে যে কারণে কংগ্রেসের সঙ্গে বিজেপির রাজনৈতিক বিরোধিতা, সেগুলি শিবসেনার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। এমনকি কিছু ক্ষেত্রে শিবসেনার অবস্থান বিজেপির চেয়েও কট্টর। ফলে শুধুমাত্র বিজেপিকে বেগ দিতে শিবসেনাকে সমর্থন মতাদর্শগতভাবে কংগ্রেসের জন্য আত্মঘাতী হতে পারে। কংগ্রেসের কিছু নেতা এও বলছেন, বিজেপি-শিবসেনার বিরোধটা আসলে ক্ষমতা ভাগাভাগির প্রশ্নে, এর সঙ্গে আদর্শের কোনও সম্পর্ক নেই। অদূর ভবিষ্যতেই দুই শরিকের ঝামেলা মিটেও যাবে।

এদিকে এই পরিস্থিতিতে এনসিপি প্রধান শারদ পাওয়ার সোমবার দিল্লিতে সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকে বসছেন। মহারাষ্ট্রের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও এনসিপি-কংগ্রেসের ভূমিকা নিয়ে তাঁদের মধ্যে আলোচনা হওয়ার কথা। পাওয়ার ইতিমধ্যেই বলেছেন, শিবসেনার মুখ্যমন্ত্রী হতেই পারে। তাদের সরকার চালানোর অভিজ্ঞতাও আছে। অতীতে শিবসেনার মনোহর যোশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন। বিজেপি অকারণ ঔদ্ধত্য দেখাচ্ছে।