করোনা হাসপাতালে ১৫ দিন ডিউটি বাধ্যতামূলক, অন্যথায় ডাক্তারদের রেজিস্ট্রেশন বাতিল

করোনা বিশ্ব মহামারির পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের একাংশের কর্তব্যে অনীহার পরিপ্রেক্ষিতে এবার কড়া ব্যবস্থা নিতে চলেছে মহারাষ্ট্র সরকার। রাজ্যে বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছে চিকিৎসক, বিশেষত বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের জন্য। এই সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রতি মাসে কমপক্ষে ১৫ দিন করোনা হাসপাতালে ডিউটি করতেই হবে। তারপর প্রাইভেট প্র্যাকটিস করতে পারবেন তাঁরা। এই নিয়মের অন্যথা হলে চিকিৎসকদের রেজিস্ট্রেশন বাতিল বলে ঘোষণা করবে রাজ্য সরকার। করোনা বিধ্বস্ত মুম্বইতে এই নিয়ম লাগু করা হয়েছে। জানানো হয়েছে, যে ডাক্তারদের বয়স ৫৫ বছরের কম, তাঁদের ক্ষেত্রেই এই নিয়ম বলবৎ হবে। ৫৫ বছরের উপরে বয়স হলে তাঁদের এই নিয়ম না পালন করলেও চলবে। আপাতত ২৫ হাজার চিকিৎসক গোটা মুম্বই জুড়ে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা করছেন। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রত্যেক চিকিৎসকের অবদান গুরুত্বপূর্ণ। রাজ্য তাঁদের কাছে এই বিপর্যয় মোকাবিলায় সাহায্য চাইছে। তবে এক্ষেত্রে চিকিৎসকদের পছন্দমত হাসপাতাল বেছে নেওয়ারও ছাড় দেওয়া হয়েছে। ওই বিজ্ঞপ্তির সঙ্গে একটি ফর্ম দেওয়া হয়েছে, যেখানে চিকিৎসকরা নিজেদের পছন্দের হাসপাতালের নাম দিতে পারবেন। এছাড়াও নিজেদের যোগ্যতা ও কোনও অসুস্থতা তাঁদের রয়েছে কিনা, তাও জানাতে পারবেন।

একইভাবে এর আগে বিহার সরকার জানিয়েছিল, ৩১ মার্চ থেকে ১২ই এপ্রিল পর্যন্ত কোনও কারণ না দেখিয়ে কাজে অনুপস্থিত রয়েছেন যে চিকিৎসকরা, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিহারের স্বাস্থ্য দফতর থেকে এঁদের প্রত্যেকের কাছে শোকজ করে কড়া চিঠি পাঠানো হয়েছে। ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্ট ও এপিডেমিক ডিজিজ অ্যাক্ট অনুযায়ী রাজ্যের ৩৬২ জন সরকারি চিকিৎসককে এই চিঠি পাঠিয়েছে বিহার সরকার।