আমপানের কাছে হার মানল ২৭০ বছরের বুড়ো শরীর!

চন্দন বন্দ্যোপাধ্যায় 

বয়স নয় নয় করে ২৭০ বছর! কত ঝড়ঝাপটা গিয়েছে মাথার ওপর দিয়ে । তবু অবিচল থেকে সব সহ্য করে নিয়েছে সে। আয়লা, ফণী- তাবড় সব ঝড়েদের বিরুদ্ধে বুক চিতিয়ে লড়াই করেছে। কিন্তু হার মানতে হল আমপানের কাছে। শিবপুর বোটানিক্যাল গার্ডেন মানেই আলোচনার কেন্দ্রে থাকে সেই বিখ্যাত ‘দ্য গ্রেট ব্যানিয়ন ট্রি’র কথা। গার্ডেনের অন্যতম আকর্ষণও ছিল এই ‘বৃদ্ধ’। পৃথিবী জোড়া খ্যাতি তার। নাম উঠেছে গিনেস বুকে। কিন্তু সুপার সাইক্লোন আমপানের দাপট আর সইতে পারল না বুড়ো শরীর। ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হল সে।
শুধু ‘দ্য গ্রেট ব্যানিয়ন ট্রি’ই নয়, বুধবারের প্রলয়ে বোটানিক্যাল গার্ডেনে পড়ে গিয়েছে হাজারেরও বেশি গাছ। কিন্তু সবার আগে চর্চায় উঠে এসেছে ওই বটবৃক্ষের কথাই। পুরনো রেকর্ড থেকে জানা যাচ্ছ , এই গাছের জন্ম ১৭৫০ সাল নাগাদ। সেই হিসেবে বয়স প্রায় ২৭০ বছর।

তবে, ১৮৬৪-র ভয়াবহ সাইক্লোনকে হারিয়েছে সে। হার মানিয়েছিল সাম্প্রতিক আয়লা বা ফণীর মতো ঝড়ও। কিন্তু আমপানের কাছে হার মানতে হল তাকে। সুপার সাইক্লোন আঘাত হেনেছে তার মূলে। বৃদ্ধ বট আর আগের মতো যুঝতে পারেনি! গাছের পুরনো অংশের ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি।
১৯২৫ সালে গাছটির মূল অংশটিকে কেটে বাদ দেওয়া হলেও দিব্যি মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিল সে। আয়লা-ফণীতেও হেলায় দাঁড়িয়েছিল গাছটি। কিন্তু আমফানের দাপটে সত্যেন্দ্রনাথ বোস রোডের দিকে ভেঙে পড়েছে এই প্রাচীন বৃদ্ধ গাছের অধিকাংশ অংশ৷

তবে শুধু ওই বটবৃক্ষ নয়। বোটানিক্যাল গার্ডেন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, মেহগিনি গাছের অ্যাভিনিউ- সহ আরও প্রচুর গাছ নষ্ট হয়ে গিয়েছে। শুধু দেশি নয়, বিদেশি এবং দুষ্প্রাপ্য বহু গাছ রয়েছে সেই তালিকায়। ঝড়ে পড়ে গেছে প্রচুর ফল। নষ্ট হয়ে গেছে বহু পাখির বাসাও। সবমিলিয়ে আমফানের প্রভাব ভালোই পড়েছে বোটানিক্যাল গার্ডেনের ওপর।

ছবি- দেবস্মিত মুখার্জি