রাম মন্দিরের জন্য মানত, ২৮ বছর না খেয়ে ছিলেন এই বৃদ্ধা!

 

বয়স প্রায় ৮৭।   শরীর নুয়ে পড়েছে। চোখে ক্ষীণ দৃষ্টি। কিন্তু জেদ এখনও প্রবল। আর তেমনই নিষ্ঠা। তাই রাম মন্দির দেখবেন বলে ২৮ বছর ধরে না খেয়ে আছেন এই বৃদ্ধা! জব্বলপুরের বিজয়নগরের উর্মিমালা চতুর্বেদী। কোনও তৈরি করা খাবার ছুঁয়ে দেখেননি এই ২৮বছর। শুধুই ফলমূল আর দুধ খেয়ে কাটিয়ে দিয়েছেন। কারণ? রামভক্তি।


শুনতে গল্প মনে হলেও এটাই সত্যি। ২৮ বছর আগে রামের নামেই শপথ নেন তিনি। যে যতদিন না রামমন্দির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হচ্ছে ততদিন তিনি অন্ন গ্রহণ করবেন না। যেমন কথা তেমন কাজ। ভারতের রাজনীতিতে বারবার পালাবদল হয়েছে, রামমন্দির হবে কি হবে না তাই নিয়ে নানা দোলাচল তৈরি হয়েছে, অটল থেকেছেন ঊর্মিলা। আজ যখন এতকিছুর পরে শিলান্যাসের প্রস্তুতি চলছে, ঊর্মিলার ক্ষীণ দৃষ্টির চোখে যেন জয়ের জ্যোতি।

২৮ বছর আগে করসেবকরা অযোধ্যার বিতর্কিত কাঠামোটি যখন ভাঙেন, তা নিয়ে দেশে আগুন জ্বলে যায়। রামভক্ত ঊর্মিলা সবটাই তখন পড়েছিলেন খবরের কাগজে । রাম মন্দির নিয়ে দেশের উত্তাল অবস্থার খবর পড়ে তখনই তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে, এর সমাধান না হওয়া পর্যন্ত অন্নগ্রহণ করবেন না। শুধু জীবত থাকতে দু’বেলা সামান্য ফলাহার আর দুধ খান। তাঁর এই সংকল্প পূরণে পুরোপুরি ভাবে সাহায্য করেছে পরিবার। তাঁরা কোনওদিন তাঁকে তাঁর সিদ্ধান্ত বদলানোর জন্য জোর করেননি। বরং তাঁর স্বাস্থ্যের খোঁজ রেখেছেন প্রতিনিয়ত।

আগামী ৫ অগাস্ট অযোধ্যার রামমন্দিরের শিলান্যাস। খুব ছোট পর্যায়ের অনুষ্ঠান করে এই শিলান্যাস হচ্ছে মহামারির আবহে। ঊর্মিলাদেবী এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে চেয়েছিলেন কিন্তু পরিবারের তরফে তাঁকে পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝিয়ে বলা হয়। আপাতত ভিডিও কনফারেন্সে গোটা অনুষ্ঠানটি যাতে তিনি দেখতে পারেন তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।