ধর্ষণ রুখতে আরও কঠোর কেন্দ্র, রাজ্যগুলিকে পাঠানো হল কড়া নির্দেশিকা

হাথরস গণধর্ষণ কাণ্ডের পর যোগী সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ গোটা দেশ। দোষীদের কড়া শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছে সাধারণমানুষ। এই ঘটনার জেরে চাপে পড়েছে বিজেপি সরকারও। এমত অবস্থায় এবার ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে উঠে-পড়ে লাগলো কেন্দ্রীয় সরকার। সেই লক্ষ্যেই যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের মতো ঘটনা লাগাম টানতে, পাশাপাশি দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর মনোভাব দেখাতে দেশের সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গুলিকে নির্দেশিকা পাঠাল কেন্দ্র। শনিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে এই নির্দেশিকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে সমস্ত রাজ্যগুলিকে।

কেন্দ্রের তরফে পাঠানো ওই নির্দেশিকায় রাজ্য সরকারগুলিকে জানানো হয়েছে, রাজ্যের কোথাও ধর্ষণ বা যৌন নির্যাতনের মতো ঘটনা ঘটলে যত দ্রুত সম্ভব ব্যবস্থা নিতে হবে পুলিশকে। এফআইআর দায়ের করার ক্ষেত্রে কোনও রকম গরিমশি করা যাবে না। দ্রুততার সঙ্গে এফআইআর দায়ের করতে হবে। পাশাপাশি ধর্ষণের মতো ঘটনার তদন্তে দুই মাসের বেশি সময় নেওয়া যাবে না। দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার করতে সমস্ত রকম প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে সরকার। দরকার পড়লে কেন্দ্রের জাতীয় ডাটাবেস ব্যবহার করতে পারবে রাজ্য প্রশাসন। ধর্ষণের পাশাপাশি যৌন হেনস্তার মত ঘটনাকেও যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে দেখার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এক্ষেত্রেও দ্রুততার সঙ্গে এফআইআর নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি ধর্ষণ যৌন হেনস্থা মতো ঘটনার ক্ষেত্রে কোন থানার এলাকায় সেটি ঘটেছে তা নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়। ভোগান্তি পোহাতে হয় নির্যাতিতা ও তার পরিবারকে। কেন্দ্রের নির্দেশিকা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এমন ঘটনায় যে কোনও থানাতেই অভিযোগ দায়ের করা যাবে। এফআইআর দায়েরের ক্ষেত্রে পুলিশের বিরুদ্ধে গড়িমসির অভিযোগ উঠলে পুলিশের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। গড়িমসির অভিযোগ প্রমাণিত হলে পুলিশের বিরুদ্ধেও নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা।

আরও পড়ুন: আনন্দপুরকাণ্ডে নয়া মোড়, অভিযোগকারিনী তরুণীর বিরুদ্ধেই মামলা রুজু পুলিশের

পাশাপাশি যিনি ধর্ষিত হয়েছেন বা যৌন হেনস্তার শিকার হয়েছেন সেই মহিলাকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে যেকোনও সরকারি চিকিৎসকের সাহায্যে শারীরিক পরীক্ষা করাতে হবে। নয়া নিয়ম অনুসারে ধর্ষণের পর নির্যাতিতা যদি মৃত্যুকালীন জবানবন্দি দিয়ে যান সেটি প্রমাণ হিসেবে মান্যতা পাবে। পাশাপাশি সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গুলিকে জানানো হয়েছে সেক্সুয়াল অ্যাসল্ট এভিডেন্স কালেকশন কিট ফরেনসিক টিমকে ব্যবহার করতে হবে এই ধরনের ঘটনার তদন্তের জন্য। কেন্দ্রের এই নির্দেশিকা না মানা হলে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়েছে রাজ্যগুলিকে।