রুদ্রনীলের বিজেপি যোগের পরই ‘বাঙালি’ ‘বাংগালী’ হয়ে গেল, নেটিজেনদের সমালোচনার মুখে অভিনেতা

বিজেপিতে যোগ দিয়েই একী বাঙালি বানান লিখলেন রুদ্রনীল! বুধবার দুপুর নাগাদ অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ নিজের ফেসবুক পেজে দুটি ছবি পোস্ট করেছেন। সঙ্গে ক্যাপশনও দিয়েছে। ছবি দুটির প্রথমটি হল বিজেপি নেতা অনির্বাণ গঙ্গোপাধ্যায়ের সঙ্গে অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় দ্বিতীয়টি হল আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত এর সঙ্গে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। আর ছবির ক্যাপশনে বাঙালিকে ‘বাংগালী’ লেখা। আর তা নিয়েই নেটাগরিকদের কটাক্ষের শিকার হতে হয়েছে রুদ্রনীলকে।

এই দুই ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে ক্যাপশনে রুদ্রনীল লিখেছিলেন, “এই দুই বাংগালীর স্ট্রাগল, পরিশ্রম, বিচক্ষণতা, দায়িত্ববোধ ও সিদ্ধান্ত অনেক মানুষকে সাহস দেয়! নতুন ভাবে ভাবতে শেখায়!” এতেই আপত্তি জানায় নেট নাগরিকদের একাংশ।

কেউ লিখেছেন, “আচ্ছা বাঙালি নয়, বাংগালী! বাহ্”, সেখানে তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য কমেন্ট করেছেন। রুদ্রনীলকে কটাক্ষ করে দেবাংশু লিখেছেন, “প্রকৃত অর্থে বিজেপির গুণ আহরণ করেছেন বোঝাই যাচ্ছে! “বাংগালী” আবার কি ?? ওদের “বঙ্গাল” থেকে অনুপ্রাণিত নাকি ? আধা বিহারী এখনই হয়ে গেছেন!! উহু! এডিট করতে যাবেন না। এডিট হিস্ট্রিতে আগের বারের মত দেখা যাবে আবার..! তখন “পায়ের বেগেই” ইয়ে ফেটে যাবে আবার..!”

এই পরেই এক সংবাদমাধ্যমকে রুদ্রনীল জানান, সমস্ত ফোনে একরকম বাংলা ফন্ট থাকে না। সেই জন্য ‘বাংগালী’ শব্দটি লিখেছিলেন তিনি। তবে কিছু মানুষের প্রচুর সময় রয়েছে এ নিয়ে চর্চা করার। তাতে রুদ্রনীল বিন্দুমাত্র বিচলিত নন। কাউকে খুশি করার প্রয়োজন নেই তাঁর। তবে রুদ্রনীল মনে করেন, অর্ধেক জেনে বাকিটা অনুমান করে লিখে দেওয়ার যে প্রবণতা ইদানীং তৈরি হয়েছে, তা দুঃখজনক। তাঁর কথায়, “এতদিন এত কাব্য কবিতা লিখলাম, সেখানে কেউ বানান ভুল ধরতে এল না, হঠাৎ করে এর কী মানে হয়!” যাঁরা বিদ্রুপ করছেন তাঁরা কেউ ভাষাবিদ নয় বলেও জানান অভিনেতা। সঙ্গে তিনি এও জানান, এই ধরনের প্রতিক্রিয়া নিয়ে তিনি মাথা ঘামান না।

আরও পড়ুন- কেন্দ্র-রাজ্যকে একহাত নিয়ে শহরের বুকে কড়া ভাষণ অধীরের

Advt