শান্তি ফেরার অপেক্ষায় লাদাখ সীমান্ত, আটমাস পর সরলো চিনের সব সেনা!

দীর্ঘ আলোচনার পর লাদাখ সীমান্তে ফিরতে চলেছে শান্তি। প্রায় আটমাস পর প্যাংগং লেকের দু’ধার থেকেই সরে গেল চিনের সব সেনা। ভারতের পক্ষ থেকেও অবশ্য সেনা প্রত্যাহার করা হয়েছে। উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়েছে সেই ছবি। জানুয়ারির শেষের দিকেও প্যাংগং লেকের উত্তরভাগে লালফৌজের মিলিটারি ক্যাম্প দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু এখন তা আর দেখা যাচ্ছে না। লেকের দুই ধারই ফাঁকা। ফলে ভারত ও চীনের মোতায়েন থাকা সেনাবাহিনী, ট্যাঙ্ক প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

দুই দেশের মধ্যে সামরিক স্তরে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের পর চলতি মাসের শুরু থেকেই লেকের দুধার থেকে সেনা সরানোর কাজ শুরু হয়। সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় সাঁজোয়া গাড়ি, ট্যাঙ্ক, অস্ত্রশস্ত্রও। পাশাপাশি প্যাংগংয়ে যে সব অস্থায়ী ক্যাম্প নির্মাণ করা হয়েছিল, তাও সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

কিন্তু প্যাংগং থেকে সেনা প্রত্যাহার হলেও এখনও ডেপস্যাং, হট স্প্রিং ও গোর্গা অঞ্চলগুলিতে সেনা মোতায়েন রয়েছে। সেই বিষয়ে শনিবার দু’দেশের মধ্যে সামরিকস্তরের বৈঠকে হবে।

প্রসঙ্গত , গতবছর পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখাকে ঘিরে ভারত-চিন বিরোধ শুরু হয়েছিল । জুন মাস নাগাদ তা ভয়াবহ আকার ধারণ করে। গালওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চিনের সেনার মধ্যে সংঘর্ষ, হাতাহাতি হয়। তাতে ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হন। মারা য্য় চিনের সেনারাও। গত চার দশকে ভারত-চিন সীমান্তে সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি তৈরি হয়।
এরই পাশাপাশি পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষে চিনের পাঁচজন সেনার মৃত্যু হয়েছিল। সেটি প্রথমদিকে স্বীকার করেনি সে দেশের সেনা আধিকারিকরা। কিন্তু শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে তা স্বীকার করে নিয়েছে চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মি বা পিএলএ।