‘সাধারণ মানুষ গাড়ি চড়েন না, তেলের দাম বাড়লে ক্ষতি কী’? আজব দাবি বিজেপি মন্ত্রীর

লাগাতার পেট্রোল-ডিজেলের(petrol diesel) মূল্যবৃদ্ধির জেরে বেহাল দশা মধ্যবিত্তের। কার্যত আগুন লেগেছে হেঁশেলে। তেলের মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম। বেড়েছে পরিবহন খরচ। এহেন অবস্থায় অদ্ভুত দাবি করে বসলেন বিজেপির মন্ত্রী(BKP Minister)। সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিহারের মন্ত্রী নারায়ণ প্রসাদের(Narayan Prasad) দাবি, তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণের উপর কোনও প্রভাব পড়বে না। কারণ তারা গাড়ি চড়েন না। বিজেপি মন্ত্রীর এহেন মন্তব্যে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

সম্প্রতি পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নীতীশ কুমারের(Nitish Kumar) মন্ত্রিসভার মন্ত্রী নারায়ণ প্রসাদ বলেন, ‘সাধারণ মানুষ তো আর গাড়ি চড়েন না। ফলে পেট্রোলের দাম বাড়লে তাদের সমস্যা কোথায়?’ এখানেই না থেমে মন্ত্রী আরো বলেন, ‘হ্যাঁ এটা ঠিক পেট্রোলের দাম বৃদ্ধিতে আমারও সমস্যা হচ্ছে। কিন্তু ধীরে ধীরে সাধারণ মানুষ এতে অভ্যস্ত হয়ে যাবেন। তখন আর সমস্যা হবে না’। অবশ্য, তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে বিজেপি মন্ত্রী এহেন দাবি করলেও, নরেন্দ্র মোদী অবশ্য আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন এই মূল্য বৃদ্ধির কারণ পূর্বতন সরকার। তামিলনাড়ুতে গ্যাস প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখার সময়েই তিনি মন্তব‌্য করেন, পূর্বতন সরকারগুলি দেশের শক্তিক্ষেত্রে আমদানি কম করার দিকে নজর দিলে এই অবস্থা হত না।

আরও পড়ুন:নিমতিতা বোমা বিস্ফোরণ : মিলেছে আঙুল, মোবাইলের টুকরো, বাইকের ব্যাটারি

তবে তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে রাজনৈতিক মতভেদ যাই থাক না কেন, প্রতিদিনের এই ঘটনা মধ্যবিত্তের হাল ক্রমশ খারাপ করছে। বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরে ক্রমাগত দাম বেড়ে চলেছে পেট্রোল, ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গিয়েছে যে রাজস্থান মধ্যপ্রদেশ পেট্রোলের দাম লিটার প্রতি ছাড়িয়ে গিয়েছে ১০০ টাকা। পাশাপাশি শনিবার দিল্লিতে পেট্রলের দাম ৯০ টাকা ৫৮ পয়সা। ডিজেলের দাম ৮০ টাকা ৯৭ পয়সা প্রতি লিটার। মুম্বইয়ে আজ প্রতি লিটার পেট্রল বিক্রি হচ্ছে ৯৭ টাকায় এবং ডিজেল বিক্রি হচ্ছে ৮৭ টাকা ০৬ পয়সা প্রতি লিটারে। চেন্নাইয়ে এক লিটার পেট্রলের দাম ৯২ টাকা ৫৯ পয়সা। ডিজেলের দাম ৮৫ টাকা ৯৮ পয়সা।

Advt