বাংলার জনতাকে ২৮ শে ব্রিগেডমুখী করতে বামেদের ভরসা ‘টুম্পা সোনা’

সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।  যুব সম্প্রদায়ের পছন্দ-অপছন্দ বুঝে চলতে হবে। এতদিনে তা টের পেয়েছে বামফ্রন্ট  (Left) নেতৃত্ব।  তাই আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ব্রিগেড সমাবেশের (brigade ground) প্রচারে ‘টুম্পা সোনা’র (tumpa sona) শরাণাপন্ন হয়েছে।  বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাম-কংগ্রেস জোটের মেগা প্রচার শো  ব্রিগেড (Brigade) সমাবেশ। তাতে জনসমাগম টানতে সিপিএম ‘টুম্পা’র দ্বারস্থ। সিপিএম নেতারাই সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘টুম্পা সোনা’ গান তুলে ধরে ব্রিগেডের প্রচার চলছে। সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র ফেসবুক পেজেও ‘টুম্পাসোনা’র অবাধ বিচরণ। তিনি নিজের ফেসবুক পেজে শেয়ার করেছেন ‘টুম্পা সোনা’কে।

সোস্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয় গান ‘টুম্পা সোনা’র সঙ্গে মিলিয়ে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে গান তৈরি করেছে বাম সমর্থকরা। একটাই উদ্দেশ্য, জনগণকে বিশেষ করে যুবসমাজকে ব্রিগেডমুখী করে তোলা। শুধু কিছু কথার অদলবদল হয়েছে। যেমন :  ‘টুম্পা/তোকে নিয়ে ব্রিগেড যাব/টুম্পা/চেন ফ্ল্যাগে মাঠ সাজাব/টুম্পা/২৮ শে তুলব আওয়াজ/টুম্পা/মোদি-দিদি সব ভোগে যাক।’ বার্তা স্পষ্ট। তরুণ প্রজন্মকে কাছে টানতে টুম্পার উপর ভর করেই চলছে ব্রিগেডের প্রচার। এমনকী বামপন্থী সমর্থক হোক কিংবা বিরোধী – সিপিএমের সুরে ‘টুম্পা সোনা’র নয়া অবতার এখন হোয়াটসঅ্যাপেও ঘুরে বেড়াচ্ছে।

একা বাম নয়, এবার ব্রিগেডের মেগা প্রচারে থাকছে বাম, কংগ্রেস, ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট নেতা আর প্রচুর সমর্থক। কারণ, এই তিন দল এবার জোট বেঁধে তৃণমূল-বিজেপির বিরুদ্ধে লড়ছে। টার্গেট এবার ১০ লক্ষ। বাম কর্মী, সমর্থকদের ইতিমধ্যেই বার্তা দেওয়া হচ্ছে – ‘আপনি আসুন, সঙ্গে আরও ২ জন।’ এভাবেই বেঁধে দেওয়া হচ্ছে লক্ষ্যমাত্রা। ২৮ ফেব্রুয়ারির ব্রিগেড নিয়ে খুব আশাবাদী বাম নেতৃত্ব। বিশেষত জেলাগুলিতে আশায় বুক বাঁধছেন কর্মীরাও। তাঁদের মতে, এবারের ব্রিগেড সমাবেশ ছাপিয়ে যাবে আগের সব সমাবেশকে। এই ব্রিগেডে আবার সঙ্গী ‘টুম্পাসোনা’। ফলে নতুন করে আশায় বুক বাঁধছেন বাম নেতৃত্ব।

Advt