কেন্দ্রের দিল্লি বিলের বিরোধিতা করে শীর্ষ আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত কেজরি সরকারের

বিরোধীদের প্রবল আপত্তি সত্ত্বেও বুধবার রাজ্যসভায়(rajya sabha) পাস হয়ে গিয়েছ দিল্লি বিল(Delhi bill)। নয়া এই বিলের ফলে দিল্লির নির্বাচিত সরকারের পরিবর্তে অধিক ক্ষমতাশালী হবে সেখানকার লেফটেন্যান্ট গভর্নর(LG)। রাজ্যসভায় পাস হয়ে যাওয়া এই বিলের বিরোধিতা করে এবার শীর্ষ আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল আপ সরকার। আপ সরকারের(AAP govt) দাবি, কেন্দ্রের আনা এই মিল দেশের শীর্ষ আদালতের সিদ্ধান্ত বিরোধী।

কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল দিল্লিতে একাধিক ক্ষেত্রে শাসন ক্ষমতার রাশ থাকে কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে। যেটুকু নির্বাচিত সরকারের হাতে থাকে সেখানেই এবার ঢুকতে চায় কেন্দ্রীয় সরকার। দিল্লির নির্বাচিত সরকার নাকি লেফ্টন্যান্ট গভর্নর, কে বেশি ক্ষমতা ধরে রাখবেন দিল্লির বুকে? এই প্রশ্নেই ‘গভর্নমেন্ট অফ ন্যাশনাল ক্যাপিটাল টেরিটরি’ (সংস্কার) সংক্রান্ত অ্যাক্ট সংসদে পেশ হয়। এই বিলকে কেন্দ্র করে শুরু থেকেই বিরোধিতা জানিয়ে এসেছিল দেশের বিরোধী দলগুলি। রাজ্য সময় বিলটি পেশ হওয়ার পর বিলটির বিরোধিতা করে সরব হয়ে ওঠেন কংগ্রেস সাংসদ মল্লিকার্জুন খাগড়ে। তিনি বলেন এই বিরোধ দিল্লি সরকারের সমস্ত অধিকার খর্ব করে তা লেফটেন্যান্ট গভর্নরকে দিতে চায়। যদি সেটাই হয় তবে নির্বাচিত সরকারের প্রয়োজন কি। তিনি আরো বলেন কেন্দ্র চায় দিল্লিতে বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠিত হোক লেফটেন্যান্ট গভর্নরের হাত ধরে। এটা গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার একটা রাস্তা।

আরও পড়ুন:মোদির সফরের আগেই বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল বাংলাদেশ

অন্যদিকে এই বিল পাস হওয়ার পর মোদি সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে টুইট করেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তিনি লেখেন, ‘এই ঘটনা ভারতীয় গণতন্ত্রের দুঃখের দিন। আমরা আমাদের লড়াই চালিয়ে যাব, যাতে মানুষের হাতে মানুষের ক্ষমতা থাকে। বাধা যেমনই হোক। আমরা তা পেরিয়ে ভালো কাজ করব। আমরা থামব না।’

Advt