অনিল দেশমুখের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়া একটা ‘দুর্ঘটনা’, এনসিপি নেতাকে কটাক্ষ শিবসেনার

অঘটনের জেরেই মহারাষ্ট্রের (Maharashtra) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়ে গিয়েছেন অনিল দেশমুখ (anil deshmukh)। না হলে তাঁর এই পদে বসার কথাই নয়! দলীয় মুখপত্র সামনায় এভাবেই এনসিপি (ncp) নেতা তথা রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখকে তীব্র কটাক্ষ করলেন শিবসেনা (shiv sena) সাংসদ সঞ্জয় রাউত (sanjay raut)। সম্প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশমুখের বিরুদ্ধে মুম্বইয়ের প্রাক্তন নগরপাল পরমবীর সিংয়ের আনা ১০০ কোটির তোলাবাজির অভিযোগ ঘিরে উত্তাল মহারাষ্ট্র। তোলাবাজি চক্রে মুম্বইয়ের প্রাক্তন সিপি সরাসরি নাম জড়িয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখের। সেই প্রসঙ্গে সামনার সম্পাদকীয়তে কলম ধরেছেন শিবসেনা মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত। আর তাতেই অনিল দেশমুখের প্রতি একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তিনি। স্বভাবতই এই ঘটনায় শাসক জোটে প্রবল অস্বস্তি।

শিবসেনা নেতা রাউত লিখেছেন, এনসিপির দুই প্রবীণ বিধায়ক জয়ন্ত পাতিল ও দিলীপ পাতিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। তাঁরা ওই দায়িত্ব নিতে না চাওয়ায় বাধ্য হয়ে অনিল দেশমুখকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়। অনিল দেশমুখের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়ে যাওয়াটা নেহাতই দুর্ঘটনা।

আরও পড়ুন-দেশের ফ্যাসিস্টদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিন’, রাহুল গান্ধীকে প্রস্তাব স্টালিনের

সামনার সম্পাদকীয়তে খোলাখুলি মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সমালোচনা করে প্রশ্ন তোলা হয়, মুম্বই পুলিশের একজন ইনস্পেক্টর হয়ে সচিন ওয়াজে এত ক্ষমতা কী করে পেল? এক পুলিশ অফিসার যে তোলাবাজির সিন্ডিকেট চালাচ্ছে সেটা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কেন জানতেন না? কার ঘনিষ্ঠ ছিলেন সচিন ওয়াজে? এসব প্রকাশ্যে আসা উচিত। শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউতের শ্লেষ: মন্ত্রীর কাজ কথা কম বলা। ঘন ঘন ক্যামেরার সামনে এসে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া একটা মন্ত্রীর কাজ নয়। শুধু স্যালুট নিলেই দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। দফতরে কোথায় কী চলছে তার খোঁজ নিতে হয়। সঞ্জয় রাউতের অভিযোগ, অনিল দেশমুখ অযথা কয়েকজন পুলিশকর্তাকে ভুল পথে চালিত করেছেন। সন্দেহভাজন আইপিএস বৃত্ত দিয়ে কখনও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক চলতে পারে না।

Advt