টিকার অভাবে বহু সেন্টার বন্ধ, ওদিকে মোদির ডাকে শুরু ‘টিকা উৎসব’, কটাক্ষ রাহুলের

দেশের বহু রাজ্যেই প্রকটভাবে করোনা- ভ্যাকসিনের অভাব দেখা দিয়েছে। মুম্বই, পুনে তো বটেই, আরও একাধিক জায়গায় টিকাকরণ কেন্দ্র বন্ধই করে দিতে হয়েছে ভ্যাকসিন এর অভাবে। পশ্চিমবঙ্গেও এমন আশঙ্কা মাথাচাড়া দিতে পারে যে কোনও মুহুর্তে৷ ওদিকে, প্রধানমন্ত্রীর (PM MODI) ডাকে আজ থেকে শুরু হয়েছে ‘টিকা উৎসব’৷

দেশজুড়ে করোনা-গ্রাফ আকাশ ছুঁতে চলেছে৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে যত দ্রুত সম্ভব বেশি সংখ্যক মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া প্রয়োজন। আর সেই সময়ই অভাব দেখা দিয়েছে ভ্যাকসিনের৷ ভ্যাকসিনের সরবরাহ কেন্দ্রীয় সরকার করতে না পারায় একের পর এক বন্ধ হচ্ছে ভ্যাকসিনেশন- সেন্টার৷ চাহিদা অনুসারে ভ্যাকসিন যোগানোর পরিবর্তে দেশজুড়ে ‘টিকা উৎসব’-এর ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ আজ রবিবার থেকে একাধিক রাজ্যে শুরু হয়েছে এই কর্মসূচি, চলবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর ডাকা এই টিকা উৎসবের কড়া সমালোচনা করেছেন কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী (RAHUL GANDHI)৷ রাহুল বলেছেন, “যখন দেশে ভ্যাকসিনের অভাব তৈরি হয়েছে, তখন এই ‘উৎসব’ কেন ? ভ্যাকসিন সরবরাহ করার দিকে মন দিক কেন্দ্র৷ তাছাড়া টিকাকরণ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, এটা কখনই কোনও উৎসব হতে পারেনা৷”

করোনা’র সংক্রমণ ঝড়ের গতি বৃদ্ধি পাওয়ায় রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দিনকয়েক আগে এক বৈঠক করেন মোদি৷ ওই বৈঠকেই এই টিকা উৎসবের কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছিলেন, ১১ এপ্রিল জ্যোতিবা ফুলের জন্মদিন, আর ১৪ এপ্রিল বাবা সাহেবের জন্মদিন। তাই ১১ থেকে ১৪ এপ্রিল দেশজুড়ে টিকাকরণের উৎসব হবে৷ মোদি বলেছিলেন, যারা ভ্যাকসিন নেওয়ার যোগ্য তাদের ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য এই বিশেষ অভিযান চলবে এবং খেয়াল রাখতে হবে, ভ্যাকসিনের একটা ডোজও যাতে নষ্ট না হয়৷ মোদির ডাকে সাড়া দিয়ে রবিবার থেকেই উত্তর প্রদেশ ও বিহারে এই টিকাকরণের উৎসব চলছে৷

আরও পড়ুন:ওওওও দিদিই… মোদির বিরুদ্ধে ইভটিজিং-এর অভিযোগ, থানা পাঠাচ্ছে কমিশনে

Advt