সংক্রমণ বৃদ্ধি অব্যাহত, সরকারি হাসপাতালগুলিতে বাড়তে চলেছে কোভিড বেডের সংখ্যা

রাজ্যজুড়ে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি অব্যাহত। ক্রমশ বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ফলে হাসপাতালে কোভিড বেডের আকাল দেখা দিচ্ছে। এবার করোনা রুখতে তৎপর রাজ্যের প্রশাসন। ইতিমধ্যেই করোনা চিকিৎসায় বেসরকারি হাসপাতালে বেড বাড়ানো হয়েছে ৩৪০০ টি। আজ রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে রাজ্যের স্বাস্থ্য সচিব এবং স্বাস্থ্য অধিকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলিতে আরও ১০০০ টি বেড বাড়ানো হবে।

এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে বাড়ছে বেড। ২২০ টি শয্যা বাড়ানো হচ্ছে সেখানে। শম্ভুনাথ পন্ডিত হাসপাতালে ২২০ বেডের কোভিড ওয়ার্ড খোলা হচ্ছে। হাওড়ার বালটিকুরি ইএসআই হাসপাতালে যেখানে ৪০০ টি শয্যা বিশিষ্ট একটি কোভিড ওয়ার্ড রয়েছে সেখানে আরও ২০০ টি শয্যা বাড়িয়ে ৬০০ কোভিড বেদ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও রাজারহাটের সিএনসিআই হাসপাতালেও কোভিড বেড বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মোটের ওপর শহর থেকে শহরতলিরতে ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে আরও ১০০০ বেড বাড়তে চলেছে। এছাড়াও ৪৫ টি বেসরকারি হাসপাতাল কোভিড বেড পাচ্ছে।

আরও পড়ুন-দেশজুড়ে ঘাটতি, ওদিকে গাফিলতিতে নষ্ট হলো ৪৪ লক্ষ করোনা ভ্যাকসিনের ডোজ

রাজ্য প্রশাসনের অধিকর্তারা মনে করছেন, রাজ্যে ভোট মিটলেই ব্যাপক হারে বাড়বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। কারণ মিটিং-মিছিল-ভোট প্রচারে মানুষ কোভিড বিধি মানছেন না। ফলে সংক্রমিতের সংখ্যা বাড়বে।

সোমবারই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় রাজ্যে তৈরি করা হবে বেশকিছু সেফ হোম ও কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। আলিপুরে উত্তীর্ণ ভবনেই ৪00 শয্যার সেফহোম তৈরি হবে। এছাড়াও আনন্দপুরে ৭00 শয্যার, গীতাঞ্জলি স্টেডিয়ামে ২00 বেডের সেফ হোম তৈরি করার পরিকল্পনা করছেন। রাজ্য সরকার আরও বেশকিছু সেফ হোম তৈরির পরিকল্পনা আছে, জানালেন ফিরহাদ হাকিম । তিনি আরও বলেন, বাইরে দশটি করে অ্যাম্বুলেন্স দাঁড়িয়ে থাকবে। গতকাল রাজ্য সরকারের সঙ্গে বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষগুলির একটি জরুরি বৈঠক হয়। তাতে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় করোনা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য । রাজ্যের সঙ্গে বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, এবারে গতবারের চেয়েও করোনার জন্য বাড়াতে হবে ২৫ থেকে ৩0 শতাংশ বেড।

Advt