রাজ্যে বকেয়া পুরভোট নিয়ে জল্পনা শুরু, কলকাতার পুর-প্রশাসক পদে ফের ফিরহাদ

রাজ্যে নজিরবিহীনভাবে ৮ দফায় বিধানসভা ভোট শেষ।
এবার জল্পনা শুরু হয়েছে, রাজ্যে বকেয়া ১১২ পুরসভায় (Municipal election) ভোট কবে হবে?

সংক্রমণের (Corona) দ্বিতীয় ঢেউ গোটা রাজ্যে যেভাবে আছড়ে পড়েছে, তাতে রাজ্য সরকার ও রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কর্তারা মনে করছেন এই পরিস্থিতিতে আগামী বেশ কয়েকমাসের মধ্যে রাজ্যে
পুরভোট করা সম্ভব নয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলেও ধারনা তৈরি হয়েছে৷ কলকাতা, হাওড়া-সহ রাজ্যের ১১২টি পুরসভার মেয়াদ শেষ হয়েছে। সিংহভাগ পুরসভার মেয়াদ শেষ হয়েছে দু’বছর আগেই৷ এ সব জায়গায় প্রশাসক বা প্রশাসকমন্ডলী কাজ করছে৷

ওদিকে, একসঙ্গে সব ক’টি পুরসভার ভোট করানোর ব্যাপারে আরও কিছু সমস্যা রয়েছে৷
রাজ্য সরকার আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে,উত্তর ২৪ পরগনার ৬টি পুরসভাকে নিয়ে একটি পুরনিগম বা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন তৈরি করা হবে৷ এ বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি৷ পাশাপাশি অতীতে বালি পুরসভাকে হাওড়া পুরনিগমের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছিল। ওয়ার্ডের পুনর্বিন্যাস করে বালি পুরসভার ৩৫ ওয়ার্ডকে হাওড়া পুর নিগমের ১৫ ওয়ার্ড হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। এরপর ফের রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নেয়, বালি পুরসভা স্বতন্ত্র ভাবেই কাজ করবে৷ এজন্য খসড়া বিধিও তৈরি হয়। কিন্তু এখনও তা চূড়ান্ত হয়নি৷ ফলে এখন পুরভোট হলে ঠিক ক’টি পুরসভায় ভোট করানো সম্ভব, প্রথমেই সেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে রাজ্যকে৷

আরও পড়ুন- করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ভারতীয় তিরন্দাজ জয়ন্ত তালুকদার

ওদিকে, মঙ্গলবারই কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান পদে ফেরানো হয়েছে ফিরহাদ হাকিমকে৷ ভোটের আগে কমিশনের নির্দেশে এই পদে ইস্তফা দিয়েছিলেন ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)। বিধানসভা ভোটের ফল ঘোষণা হয়ে গিয়েছে৷ তাই মঙ্গলবারই কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান পদে ফেরানো হলো তাঁকে৷ একইসঙ্গে দায়িত্বে ফিরলেন অন্যান্য প্রশাসকরাও৷ মঙ্গলবার নবান্নের নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান পদে ফেরানো হচ্ছে ফিরহাদ হাকিমকে। ভোটের মুখে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ মেনেই এই পদ থেকে ফিরহাদ ইস্তফা দেন। সেই সময় কলকাতা পুরসভার প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের সচিব খলিল আহমেদকে।

আরও পড়ুন- ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে রাজ্যপালকে ফোন উদ্বিগ্ন মোদির

Advt