ওমিক্রন ও ডেল্টার সংক্রামক ক্ষমতাকে রুখে দিচ্ছে কোভ্যাক্সিনের বুস্টার ডোজ, দাবি ভারত বায়োটেকের

এদিন প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, ১০ দিনে ২ কোটির বেশি কিশোরকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে

ওমিক্রন আর ডেল্টার সংক্রামক ক্ষমতাকে রুখে দিচ্ছে কোভ্যাক্সিনের বুস্টার ডোজ । এই দাবি করেছে উৎপাদক সংস্থা ভারত বায়োটেক। ইমোরি ইউনিভার্সিটির সাম্প্রতিক সমীক্ষায় কোভ্যাক্সিনের বুস্টার ডোজ এফিকেসি প্রসঙ্গে এই দাবি করা হয়েছে।

করোনার দ্বিতীয় ডোজ এবং বুস্টার ডোজের মাঝে ব্যবধান অন্তত ৬ মাস হলে ফল মিলছে দ্রুত। এমনটাই ভারত বায়োটেকের দাবি। রীতিমতো বিবৃতি দিয়ে এই দাবি করার পাশাপাশি টিকা উৎপাদনকারী এই সংস্থা জানিয়েছে, মেডআরজিভ জার্নালে তাদের এই গবেষণা প্রকাশ করবে ইমোরি বিশ্ববিদ্যালয়।

এদিকে, দেশব্যাপী করোনার সক্রিয় সংক্রমণ প্রায় ১ মিলিয়ন। বুধবার দেওয়া পরিসংখ্যানে জানিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক। ১২ দিনে প্রায় ১০% বেড়েছে সংক্রমণের হার। বুধবার অর্থাৎ ১২ জানুয়ারি সেই শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১.০৫%। পাশাপাশি সক্রিয় সংক্রমণ এই মুহূর্তে ৯.৫ লক্ষ। দৈনিক বুলেটিন প্রকাশ করে এই তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক।

আরও পড়ুন- Jammu And Kashmir: ফের উত্তপ্ত উপত্যকা, সেনা-জঙ্গি গুলির সংঘর্ষে শহিদ ১ পুলিশ, নিকেশ ১ জঙ্গি

এদিন প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, ১০ দিনে ২ কোটির বেশি কিশোরকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। দেশের যুব সম্প্রদায়ের দায়িত্বজ্ঞানকে কুর্নিশ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী, ‘এভাবে টিকাকরণ চলতে থাকে অতি দ্রুতই লক্ষ্যে পৌঁছনো সম্ভব হবে।‘ ৩ জানুয়ারি থেকে দেশব্যাপী ১৫-১৮ বয়সীদের টিকাকরণ শুরু হয়েছে। তৃতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ সুনামি ভারতে। একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষের দোরগোড়ায় চলে গেল বুধবার। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ৯৪ হাজার ৭২০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৪২ জনের।

দেশে সংক্রমণের হার ৫.১৯ শতাংশ। টেস্ট পজিটিভটি রেট পৌঁছে গেছে ১১.০৫ শতাংশে। সবমিলিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৬০ লক্ষ ৭০ হাজার ৫১০। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা। দেশে এই মূহূর্তে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৯ লক্ষ ৫৫ হাজারের বেশি। উদ্বেগ বাড়িয়ে ঊর্ধ্বমূখী ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা।

Previous articleউত্তরপ্রদেশ নির্বাচন: উন্নাও নির্যাতিতার মা সহ ১২৫ প্রার্থীর নাম ঘোষণা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর