১০০ ডায়াল করে জরুরি তলব, যুবকের ‘আবদারে’ তাজ্জব পুলিশ

হঠাৎ পুলিশের কন্ট্রোলরুমে(Control Room) ১০০ ডায়ালে(100 Dial)ফোন।ফোনে পরিষ্কার হলনা বিষয়টা । একেবারে জরুরি তলব করেই পুলিশের কাছে ঠাণ্ডা বিয়ারের(Beer)আবদার করে বসলেন মধু।১০০ ডায়ালে ফোন করা হয় কোনও আপৎকালীন পরিস্থিতিতে। বিপদে- আপদে আইনরক্ষকের ঝটপট সাহায্য পেতে সাধারণ মানুষের জন্য এই নম্বর। কিন্তু মধু যা করলেন তাতে হতভম্ব হয়ে গেছে তেলেঙ্গানার। ভ্যাবাচাকা খেয়ে চটেও গিয়েছেন তাঁরা। মদ্যপ মধুকে দিয়েছেন ঠ্যাঙ্গানি এবং দায়ের করেছেন অভিযোগ।

সোমবার রাত তখন আড়াইটে। ১০০ ডায়ালে ফোন করেছিলেন মধু। কন্ট্রোলরুম থেকে ফোন তুলতেই তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয়, ‘কোনও বিপদে পড়েছেন? কিছু প্রয়োজন?’কিন্তু বিষয়টি নিয়ে ফোনে কিছুতেই বলতে চাননি তিনি। শুধু বলেছিলেন,খুব জরুরি দরকার। তারপরই ফোনটা কেটে দেন মধু।ফোনটি পেয়ে পুলিশের ধারণা হয় কোন  বড় ধরণের বিপদে পড়েছেন ওই ব্যক্তি। হয়তো ফোনে বলতে পারছেন না। দুই কনস্টেবলকে কন্ট্রোলরুম থেকে ফোন করে বলা হয় তৎক্ষণাৎ দৌলতাবাদে  পৌঁছতে হবে। ফোন পেয়েই দুই কনস্টেবল দ্রুত মধুর বাড়িতে পৌঁছন। ঢুকে তাঁরা হতভম্ব হয়ে যান,দেখেন সবকিছুই স্বাভাবিক,কোথাও কোনও বিপদ,ঝামেলা বা জরুরি অবস্থার চিহ্ন নেই।

পুলিশ তাঁকে জিজ্ঞাসা করে কেন ফোন করেছিলেন? মধু  সুরাপান করে তখন মত্ত। পুলিশের প্রশ্নে মধু আবদার করে বসেন, ‘‘সব দোকান বন্ধ হয়ে গিয়েছে। দু’বোতল বিয়ার এনে দেবেন?’’ জরুরি অবস্থাই বটে। কিন্তু হলে কী হবে। রাতবিরেতে এমন বোকা বনে বেজায় চটে গেলেন দুই পুলিশকর্মী। মধুকে বেশ দু’চার ঘা দেন এবং তাঁর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগও দায়ের করেন।

Previous articleদিল্লি হাইকোর্টের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে শীর্ষ আদালতে অভিষেক, সুপ্রিম-ভর্ৎসনার মুখে ইডি