সাতসকালেই পার্থকে নিয়ে ভুবনেশ্বর এইমসের পথে ইডি কর্তারা

হাইকোর্টের নির্দেশমত সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে সঙ্গে নিয়ে ভুবনেশ্বর বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা দেন ইডির আধিকারিকরা। তাঁরা ছাড়াও বিমানে রয়েছেন এসএসকেএমের চিকিৎসক ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আইনজীবী। সোমবারই ভুবনেশ্বরের এইমসের চিকিৎসকেরা পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মেডিক্যাল পরীক্ষা করবেন।এইমস ভুবনেশ্বরকে  নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, কার্ডিয়োলজি, নেফ্রোলজি, মেডিসিন, এন্ড্রোক্রিনোলজি বিভাগের চিকিৎসক দিয়ে দল তৈরি করতে, যাঁরা পার্থের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবেন। সোমবার বিকেল ৩টের মধ্যে এইমস ভুবনেশ্বরকে পার্থর শারীরিক অবস্থার রিপোর্ট দিতে হবে। আজ বিকেলে সেই সংক্রান্ত রিপোর্ট নিয়ে বিশেষ আদালতে পেশ করবে ইডি।

আরও পড়ুন:জানেন কী দেশের অধিকাংশ রাষ্ট্রপতি কেন ২৫ জুলাই তারিখেই শপথ নেন?

এদিন সকাল থেকেই পিজি হাসপাতাল চত্বরে পুলিশের আনাগোনা বাড়ছিল। নিরাপত্তার ঘেরাটোপে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে অ্যাম্বুলেন্সে তোলেন ইডির আধিকারিকরা। নিরাপত্তার ঘেরাটোপে কলকাতা নেতাজী সুভাষচন্দ্র বোস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ৫ নম্বর গেট দিয়ে অ্যাম্বুল্যান্সে প্রবেশ করেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। গোটা বিমানবন্দর নিরাপত্তার ঘেরাটোপে মুড়ে ফেলা হয়। এরপরই সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে ভুবনেশ্বরের উদ্দেশে পার্থকে নিয়ে রওনা দেন ইডির কর্তারা।

এসএসসি নিয়োগ মামলায় ধৃত মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এসএসকেএমে চিকিৎসাধীন। কিন্তু সেখান থেকে তাঁকে সরাতে চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন জানায় ইডি। তাঁদের অভিযোগ, তাঁদের সঙ্গে সহযোগিতা করছেন না পার্থ। হাসপাতালের বিরুদ্ধেও অভিযোগ কেন্দ্রের তদন্তকারী সংস্থার। হাইকোর্টে শুনানিতে ইডির  আইনজীবী পার্থকে স্থানান্তরিত করার আর্জি জানান। এদিকে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের আইনজীবীর অভিযোগ, জোকা ইএসআইয়ের উপর চাপ সৃষ্টি করা হয়েছে। শুনানি শেষ হলেও রবিবার সন্ধেয় সাময়িক রায়দান স্থগিত রাখে আদালত। রাতে ভুবনেশ্বরের এইমসে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।








Previous articleBreakfast news: ব্রেকফাস্ট নিউজ