আট অগস্টের মধ্যে প্রমাণ করতে হবে কার হাতে থাকবে শিবসেনার রাশ

কার হাতে থাকবে শিবসেনার (Shiv Sena) নিয়ন্ত্রণ বালাসাহেব পুত্র নাকি সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী হওয়া একনাথ শিন্ডে(Eknath Shindhu)! যতক্ষণ না ঠিক হচ্ছে ততক্ষণ নির্বাচন কমিশনকে (Election Commission) কোনও সিদ্ধান্ত না নেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল উদ্ধবের(Uddhab Thakrey) শিবসেনা গোষ্ঠী। অন্যদিকে বিজেপির সমর্থন নিয়ে সরকার গঠনের পর টিম শিন্ডের দাবি, এটাই আসল শিবসেনা। শিন্ডে এবং উদ্ধব দুই গোষ্ঠীকেই ৮ অগস্ট পর্যন্ত সময় দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তার মধ্যেই সমস্ত নথি এবং লিখিত বিবৃতি দিয়ে প্রমাণ করতে হবে, কার হাতে থাকবে দলের রাশ। তারপরেই শুনানি করবে নির্বাচন কমিশন।

ঠাকরে গোষ্ঠী সুপ্রিম কোর্টকে আবেদন করে, শিবসেনার বিদ্রোহী বিধায়কদের যতক্ষণ না অযোগ্য ঘোষণা করা হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। অন্যদিকে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিয়ে শিন্ডে গোষ্ঠী দলীয় প্রতীক এবং নির্বাচন করার দাবি জানিয়েছে। একনাথ শিবিরের দাবি, ৫৫ জন বিধায়কের মধ্যে ৪০ জন বিধায়ক এবং ১৮ জন সাংসদের মধ্যে ১২ জন সাংদের সমর্থন রয়েছে।

দলের নিয়ন্ত্রণ কার হাতে থাকবে তা প্রমাণ করার জন্য‌ শনিবার নির্বাচন কমিশন দুই শিবিরকেই ৮ আগস্ট পর্যন্ত সময় দিয়েছে। ওই নোটিশে বলা হয়েছে, এটা স্পষ্ট যে শিবসেনার মধ্যে দুটি গোষ্ঠী রয়েছে। একটি গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিচ্ছেন একনাথ শিন্ডে এবং অন্য গোষ্ঠীর নেতৃত্ব দিচ্ছেন উদ্ধব ঠাকরে। উভয় গোষ্ঠীর নেতাই প্রকৃত শিবসেনা বলে দাবি করেছেন। যদিও নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, সমস্ত নথি এবং লিখিত বিবৃতি পাওয়ার পরই শুনানির জন্য পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

মহারাষ্ট্র বিধানসভার স্পিকারকে শিন্দে শিবির বলেছিল, ঠাকরে শিবিরকে অযোগ্য ঘোষণা করতে। যদিও ১১ জুলাই দে‌শের শীর্ষ আদালত স্পিকার রাহুল নারওয়েকরকে, ঠাকরে শিবিরের অযোগ্যতার আবেদনে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে নিষেধ করেছিল।

শিন্ডে শিবিরের দাবি, গত মাসে আস্থা ভোট এবং স্পিকার নির্বাচনের সময় দলের হুইপ অমান্য করার জন্য তাদের সেনা প্রতিদ্বন্দ্বীদের অযোগ্য ঘোষণা করা দরকার। ১ অগস্ট এই মামলার শুনানি হবে।


Previous articleShikhar Dhawan: ক‍্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে জয়ের পর সেলিব্রেশনের ছবি পোস্ট ধাওয়ানের