পার্থ বান্ধবী অর্পিতার মাধ্যমেও শয়ে শয়ে চাকরির সুপারিশ, ইডির হাতে চাঞ্চল্যকর তথ্য

অর্পিতা যে পার্থ ঘনিষ্ঠ বান্ধবী, তাঁর কথা বা আবদার যে মন্ত্রী ফেলতে পারবেন না সেকথা অনেকেই জানতেন। তাই চাকরির জন্য অনেকেই অর্পিতার দ্বারস্থ হতেন

আজ, বুধবার আরও একদফায় ইডি হেফাজত শেষে ব্যাঙ্কশাল কোর্টে তোলা হবে পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও তাঁর ঘনিষ্ঠ বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে। তার আগেই তদন্তকারীদের হাতে চাঞ্চল্যকর তথ্য। প্রভাবশালী মন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ বান্ধবী হওয়ার সুবাদে ঘুরপথে অনেকের হয়ে চাকরির সুপারিশ দিতেন অর্পিতা।
এক্ষেত্রে তদন্তকারীদের যুক্তি, অর্পিতা যে পার্থ ঘনিষ্ঠ বান্ধবী, তাঁর কথা বা আবদার যে মন্ত্রী ফেলতে পারবেন না সেকথা অনেকেই জানতেন। তাই চাকরির জন্য অনেকেই অর্পিতার দ্বারস্থ হতেন। সেই সুবাদে অর্পিতার কাছে শিক্ষা দফতরের বিভিন্ন পদে চাকরির জন্য সুপারিশের প্রস্তাব আসা শুরু হয়। তাঁর সুপারিশকৃত প্রার্থীদের নামের সেই তালিকা ইডি’র হাতে এসেছে।
ইডি সূত্রের খবর, অর্পিতার বিভিন্ন ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হওয়া ডায়েরি, নোটবুক, চিরকুট থেকে এমন কিছু তথ্য মিলেছে যেখানে কয়েকশো চাকরি প্রার্থীর নামের সুপারিশ রয়েছে।  মূলত প্রাইমারি, আপার প্রাইমারি, নবম-দশম শ্রেণির শিক্ষক এবং গ্রুপ ডি পদে চাকরির জন্য করা হয়েছিল সেই সুপারিশ। অভিযোগ, অর্পিতার দেওয়া এই তালিকা বিশেষ ‘মার্ক’ করে এসএসসি অফিসে পাঠিয়ে দিতেন তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। ফোনেও শিক্ষা দফতরের  আধিকারিককে নির্দেশ দিতেন, চাকরি যেন হয়। স্পেশাল কেস। বিষয়টি দেখে নিতে হবে। ওই প্রার্থীদেরই কারও কাছ থেকে আট লক্ষ তো কারও কারও থেকে দশ লক্ষ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে দাবি তদন্তকারীদের।
ফলে গতকাল, মঙ্গলবার জোকা ইএসআই হাসপাতালে স্বাস্থ্যপরীক্ষার জন্য গিয়ে সাংবাদিকদের সামনে অর্পিতার ‘‘এই টাকা আমার নয়। আমার অজান্তে এবং অনুপস্থিতিতে তা ঘরে ঢোকানো হয়েছিল” দাবিকে উড়িয়ে দিয়েছে ইডি।

Previous articleআজ মন্ত্রিসভায় রদবদল