আইএসএলে ডোপ কেলেঙ্কারি, দু’বছরের জন্য নির্বাসিত বাগানের প্রাক্তন ফুটবলার আশুতোষ মেহতা

নাডার রিপোর্ট অনুযায়ী, ৮ ফেব্রুয়ারি গোয়ায় এটিকে মোহনবাগান-হায়দরাবাদ এফসি ম্যাচের পর আশুতোষের যে মুত্র নমুনা নেওয়া হয়েছিল তাতে মরফিন পাওয়া গিয়েছে। 

ডোপ টেস্টে পজিটিভ এটিকে মোহনবাগানের (ATK Mohunbagan) প্রাক্তন ফুটবলার আশুতোষ মেহতা (Ashutosh Mehta)। যার ফলে তাঁকে দু’বছরের জন্য নির্বাসিত করল অ্যান্টি ডোপিং ডিসিপ্লিনারি প্যানেল। নাডার রিপোর্ট অনুযায়ী, ৮ ফেব্রুয়ারি গোয়ায় এটিকে মোহনবাগান-হায়দরাবাদ এফসি ম্যাচের পর আশুতোষের যে মুত্র নমুনা নেওয়া হয়েছিল তাতে মরফিন পাওয়া গিয়েছে। বুধবার রাতে এমনটাই জানিয়েছে জাতীয় ডোপ বিরোধী সংস্থা।

জানা যাচ্ছে, ২০২২ সালের আইএসএল চলার সময় মরফিন নামক মাদক নিয়েছিলেন আশুতোষ মেহতা। গত ৮ ফেব্রুয়ারি আশুতোষের নমুনা নেওয়া হয়। নাডা জানিয়েছে, আশুতোষের নমুনায় মরফিনের উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে। সবুজ-মেরুনের প্রাক্তন ফুটবলার নাডাকে জানান, তিনি ইচ্ছে করে নিষিদ্ধ ওষুধ নেননি। ব্যথা কমানোর জন্য আইএসএল চলাকালীন তিনি এক সতীর্থের থেকে ওষুধ নেন। তবে সেই সতীর্থ কে, তিনি সেই মরফিনযুক্ত ওষুধ নিয়মিত খান কি না, তা অবশ্য জানা যায়নি।

নাডাকে আশুতোষ মেহতা যে তথ্য দিয়েছেন সেখানে উল্লেখ রয়েছে, সবুজ-মেরুনের এক সতীর্থের পরামর্শে ওষুধ নিয়েছিলেন। এমনকী মরফিনকে আয়ুর্বেদিক ওষুধ বলে দাবি করেন তিনি। তবে সেই আবেদনকে গুরুত্বই দেওয়া হয়নি। তাঁকে কড়া শাস্তির মুখেই পড়তে হয়েছে।

ভারতীয় ফুটবলে রাইট ব্যাক হিসেবে খুব পরিচিত রয়েছে আশুতোষ মেহতা। আই লিগ এবং আইএসএলে দীর্ঘ সময় খেলেছেন তিনি। একসময় আই লিগের ক্লাব মুম্বই এফসি-র হয়ে খেলা শুরু করেছিলেন তিনি। এরপর আইএসএল-এর ফ্র্যাঞ্চাইজি টিম মুম্বই সিটি এফসি, এটিকে মোহনবাগান, পুনে সিটি এফসি, নর্থ ইস্ট ইউনাইটেডের হয়েও খেলেছেন। কিবু ভিকুনার কোচিং-এ মোহনবাগানের আই লিগজয়ী দলের সদস্যও ছিলেন তিনি। এখনও পযর্ন্ত ক্লাব ফুটবলে ২০৭টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। তবে জাতীয় দলের হয়ে মাত্র একটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন আশুতোষ।

আরও পড়ুন:Breakfast Sports: ব্রেকফাস্ট স্পোর্টস

 

Previous articleNASA: পৃথিবীর আরও কাছে বৃহস্পতি, ২৬ সেপ্টেম্বর চোখ রাখুন মহাকাশে!