২৪ ঘণ্টা থেকে বাধ্যতামূলক ইস্তফা গৌতমের

সাংবাদিক মহলে আগ্রহ তাঁর ফেসবুক(Facebook) পেজের দিকে। প্রশ্ন, এবার কোথায়, দাড়ি না কমা? তাছাড়া এবারেও হয়তো তিনি সামাজিক মাধ্যমে লিখে বোঝানোর চেষ্টা করবেন, ইস্তফাটা নিজের ইচ্ছেতেই দিয়েছেন।

২৪ ঘণ্টা চ্যানেল থেকে বাধ্যতামূলক ইস্তফা (resignation) দিলেন সাংবাদিক গৌতম ভট্টাচার্য (Gautam Bhattacharya)। মাত্র ৬ মাসের মধ্যেই তাঁকে সরিয়ে দিল চ্যানেল কর্তৃপক্ষ (Channel Authority)।

একটি প্রথম সারির দৈনিক থেকে ৬ মাস আগেই তিনি গিয়েছিলেন জি ২৪ ঘণ্টায়। চ্যানেলের মাথায় বসেছিলেন। আর তারপর থেকেই নিউজ চ্যানেলটি (News Channel) ক্রমশ বিনোদন চ্যানেলে পরিণত হয়েছিল। যা নিয়ে রীতিমতো অসন্তুষ্ট ছিল চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। ফলে গুঞ্জন শুরু হয়, দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হতে পারে গৌতমকে। গুঞ্জনের মধ্যে যে সত্যতা ছিল যথেষ্টই প্রমাণিত হল। এদিন তারই পদক্ষেপ হিসেবে বাধ্যতামূলক ইস্তফা দিলেন এই প্রবীন সাংবাদিক (Reporter)।

সাংবাদিক মহলে আগ্রহ তাঁর ফেসবুক(Facebook) পেজের দিকে। প্রশ্ন, এবার কোথায়, দাড়ি না কমা? তাছাড়া এবারেও হয়তো তিনি সামাজিক মাধ্যমে লিখে বোঝানোর চেষ্টা করবেন, ইস্তফাটা নিজের ইচ্ছেতেই দিয়েছেন।

গৌতম ভট্টাচার্যর বিদায়ের সঙ্গে সঙ্গে মৌপিয়া নন্দীর (Moupiya Nandi) নেতৃত্বে ২৪ ঘন্টা চ্যানেলের সাংবাদিকরা আলোচনায় বসেছেন। লক্ষ্য দ্রুত চ্যানেলটিকে খবরের আঙিনায় ফিরিয়ে আনা। গৌতম-ঘনিষ্ঠরা অবশ্য বলছেন, এখনই সাংবাদিকতার বানপ্রস্থে যেতে চান না এই প্রবীণ। যোগাযোগ কাজে লাগিয়ে কোথাও না কোথাও ঠিক ভেসে উঠবেন।

এক্ষেত্রে তাঁর ঘনিষ্ঠদের দাবি, হয়তো টেকনো ইন্ডিয়া গ্রুপের সত্যম রায় চৌধুরীকে অনুরোধ করবেন জায়গা দেওয়ার জন্য। নয়তো অনুরোধ করবেন কলকাতা টিভির কৌস্তভ রায়কে। তবে গৌতম ভট্টাচার্যর বেশ কিছু ঘনিষ্ঠ বলছেন, এক প্রবীন সাংবাদিক একটি চ্যানেল খুলতে উদ্যোগী হয়েছেন। সেখানেই চেষ্টা করছেন তিনি। কারণ, প্রবীন সাংবাদিকটি ভুবনেশ্বরে জেল বন্দি থাকার সময় গৌতম ভট্টাচার্য তাঁকে দেখতে গিয়েছিলেন। সেই যোগাযোগটি কাজে লাগাতে চাইছেন তিনি। সব মিলিয়ে বুধবার দুপুরে বাধ্যতামূলক ইস্তফা দিয়ে “লাইমলাইট”- এ গৌতম ভট্টাচার্য

 

Previous articleশুভেন্দুর বিরুদ্ধে শিশু অধিকার রক্ষা কমিশনে অভিযোগ দায়ের