যারা পাড়ায় ময়লা ফেলে তারা গণশত্রু! চিহ্নিত করুন, কড়া বার্তা মেয়রের

ডেঙ্গু নিয়ে সচেতনতার পাশাপাশি বিরোধী দলকেও বিভিন্ন রাজনৈতিক ইস্যুতে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি ফিরহাদ হাকিম

এ বছর কলকাতা সহ বেশ কয়েকটি জেলায় অতিরিক্ত ডেঙ্গুর প্রকোপ। শুধু আক্রান্ত হওয়াই নয়, মশাবাহিত এই রোগের প্রাণহানির ঘটনাও ঘটছে। আর এই ডেঙ্গু মোকাবিলায় সবার আগে মানুষকে সচেতন হতে বলে বলে আগেই বার্তা দিয়েছিলেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। এবার ডেঙ্গু মোকাবিলায় রাজপথে নেমে ফের কড়া বার্তা মেয়রের। মডেল ওয়ার্ড হিসেবে চিহ্নিত ১০১ নম্বর ওয়ার্ডে পথে পথে ঘুরে সচেতনতা বার্তা দিলেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম, স্থানীয় কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্ত, বিধায়ক দেবব্রত মজুমদার সহ আরও অনেকে।

এদিন ডেঙ্গু নিয়ে সচেতনতার পাশাপাশি বিরোধী দলকেও বিভিন্ন রাজনৈতিক ইস্যুতে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি ফিরহাদ হাকিম। এক নজরে দেখুন কী কী বললেন ফিরহাদ হাকিম।

যারা পাড়ায় ময়লা ফেলে তারা গণশত্রু! চিহ্নিত করুন, খবর দিন।

ডাব বিক্রেতাদের জন্য একটা গাইড লাইন ইস্যু করা হবে। যাতে গোটা খোলার বদলে খোলা হাফ করে কেটে ফেলা হয়।

সুকান্ত মজুমদার যদি কথা দেয় ডেঙ্গি রুখে দেবে, তাহলে আমি এক্ষুণি পদত্যাগ করব।

হু নিষেধ করেছে বলেই মশা মারার ধোঁয়া দেওয়া বন্ধ করেছি।

মুর্শিদাবাদে সাংসদ আবু তাহেরের গাড়ির ধাক্কায় শিশু মৃত্যুর ঘটনা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। গাড়ির ড্রাইভারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা শোকার্ত পরিবারের পাশে আছি। আবু তাহের বলে না, যে কোনও বেপরোয়া ড্রাইভিং-এর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা হবে।

মিনাখায় পরিবারের কেউ বোমা বাঁধছিল। বোমার বারুদ কোথা থেকে আসছে। কোথায় উৎপাদন হয়? গান শেল কারখানার বারুদ বাইরে আসছে কিভাবে? আর জেনে রাখুন, এগুলো NIA এসে ধরেনি। রাজ্যের পুলিশই ধরেছে।

আজ রাজ্যে নীতিন গড়কড়ি। ওনাকে স্বাগত। কিন্তু উনি ভুলে গেছেন, ওনার থেকেও বড় নেতা, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং আরেকটা মোটা মতো লোক (অমিত শাহ) এসে অনেক লাফালাফি করেছে। কিন্তু কোনও লাভ হয়নি।

তোলাবাজি যে কোনও মূল্যে রুখছি। রুখব। পুলিশকে কড়া নির্দেশ দেওয়া আছে।

দিলীপবাবুর উচিৎ নিজেদের ঠিক করা। আমাদের দু’একটা নেতা অন্যায় করেছে। কিন্তু আমাদের দল হল ত্যাগের দল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজও সততার প্রতীক।

সাইথিয়ায় কোনও গোষ্ঠী কোন্দল নেই। গ্রামীন বিবাদ। দুই পরিবারের মধ্যে গোলমাল। এখন তো সবাই তৃণমূল। তাই কিছু লোক গোষ্ঠী কোন্দল বলে চেঁচায়।

১০০ শতাংশ কাজ হয়েছে এমন দাবি আমরা করিনি। একমাত্র মুখ্যমন্ত্রী, যিনি জেলায় জেলায় গিয়ে প্রশাসনিক বৈঠক করেন। বাকি থাকা কাজ দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করেন।

Previous articleকলকাতা বিমানবন্দরে উদ্ধার লক্ষ লক্ষ টাকার সোনা, অভিযুক্তকে জিজ্ঞাসাবাদ