টি-শার্টে রামধনু, মার্কিন সাংবাদিককে স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে বাধা! ক্ষমা প্রার্থনা ফিফার

কাতারে সমকামিতা অপরাধ বলে গণ্য হয়। সেই কারণেই একাধিক আন্তর্জাতিক তারকা বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতে রাজি হননি।

রামধনু রং দেখলেই ক্ষেপে যাচ্ছে কাতারের প্রশাসন। এবার তাদের নিশানায় সাংবাদিকও। তাঁর ‘অপরাধ’ তিনি রামধনু (Rainbow) রঙের টি-শার্ট পরেছিলেন। কাতার বিশ্বকাপের (Qatar World Cup) স্টেডিয়ামে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয় গ্রান্ট ওয়াল নামে ওই মার্কিন সাংবাদিককে (American journalist)। তাঁর ফোনও কেড়ে নেওয়া হয় বলে সূত্রের খবর।

সম*কামীদের সমর্থন করে বিশেষ আর্মব্যান্ড পরে মাঠে নামতে চেয়েছিলেন বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশের অধিনায়করা। কিন্তু ফিফার (FIFA) তরফে জানানো হয়, ওই আর্মব্যান্ড পরে খেললে শাস্তির মুখে পড়তে হবে। কাতারের প্রশাসনের চাপেই ফিফার এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সোমবার আহমেদ বিন আলি স্টেডিয়ামে (Ahmed Bin Ali Stadium) আমেরিকা বনাম ওয়েলসের ম্যাচ দেখতে গিয়েছিলেন গ্রান্ট। তাঁর পরনে ফুটবলকে ঘিরে রামধনু রঙের বলয় আঁকা টি-শার্ট। কিন্তু তাঁকে বাধা দেওয়া হয়। বলা হয়, টি-শার্ট পাল্টাতে হবে। এই রকম পোশাক পরা বেআইনি। ঘটনাটি টুইট করেন স্বয়ং গ্রান্ট। সেই অপরাধে তাঁর ফোনও কেড়ে নেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। আটকে রাখা হয় প্রায় পঁচিশ মিনিট। শেষ পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে স্টেডিয়ামে ঢোকার অনুমতি পান গ্রান্ট। বিতর্কিত টি-শার্ট পরেই খেলা দেখেছেন তিনি। সেই ছবি পোস্টও করেন স্যোশাল মিডিয়ায় (Social Media)। ফিফার(FIFA) তরফে তাঁর কাছে ক্ষমাও চাওয়া হয়। তিনি। সেই ছবি পোস্ট করে গ্রান্ট অবশ্য জানিয়েছেন, আপাতত আর কোনও সমস্যায় পড়তে হয়নি তাঁকে।

কাতারে সমকামিতা অপরাধ বলে গণ্য হয়। সেই কারণেই একাধিক আন্তর্জাতিক তারকা বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পারফর্ম করতে রাজি হননি। ইংল্যান্ড,নেদারল্যান্ডস-সহ বেশ কয়েকটি দেশ সমকামিতার পক্ষে আর্মব্যান্ড পরার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু ফিফার তরফ থেকে জানানো হয়, ফিফার দেওয়া আর্মব্যান্ড ছাড়া অন্য আর্মব্যান্ড পরলে দলের অধিনায়ককে ম্যাচের শুরু থেকেই হলুদ কার্ড দেখিয়ে দেওয়া হবে। এরপরেই সেই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে দলগুলি।

 

Previous articleশুরুতেই ছন্দপতন আর্জেন্তিনার, হার দিয়ে বিশ্বকাপের অভিযান শুরু মেসিদের