উত্তরপ্রদেশ ছাড়ার ‘সুপ্রিম নির্দেশ’, লখিমপুরকাণ্ডে জামিনে মুক্ত মূল অভিযুক্ত আশিস  

শীর্ষ আদালত সাফ জানিয়ে দিয়েছে, সাক্ষীদের উপর প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলেই খারিজ হয়ে যাবে মন্ত্রীপুত্রের জামিন। তবে এমন ঘৃ*ণ্য ও নির্ম*ম ঘটনা ঘটানোর পরেও কীভাবে মন্ত্রী পুত্রকে জামিন দেওয়া হল তা নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

লখিমপুর খেরি মামলায় (Lakhimpur Kheri Case) অবশেষে জামিন পেলেন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী অজয় ​​মিশ্রের (Ajay Tenis) ছেলে আশিস মিশ্র (Ashis Mishra)। বুধবার সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court of India) তাঁর আট সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন (Interim Bail) মঞ্জুর করল। তবে শীর্ষ আদালতের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, লখিমপুর মামলার সাক্ষীদের কোনওভাবেই প্রভাবিত করতে পারবেন না আশিস বা তাঁর পরিবারের সদস্যরা। আর সেকারণেই সেই জন্য দিল্লি বা উত্তরপ্রদেশে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়নি তাঁকে। পাশাপাশি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই উত্তরপ্রদেশ (Uttar Pradesh) ছেড়ে চলে যেতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত। পাশাপাশি শীর্ষ আদালত সাফ জানিয়ে দিয়েছে, সাক্ষীদের উপর প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলেই খারিজ হয়ে যাবে মন্ত্রীপুত্রের জামিন। তবে এমন ঘৃণ্য ও নির্মম ঘটনা ঘটানোর পরেও কীভাবে মন্ত্রী পুত্রকে জামিন দেওয়া হল তা নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে অক্টোবর মাসে বিক্ষোভরত কৃষকদের উপরে গাড়ি চালান আশিস মিশ্র। দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় ৪ কৃষকের। ২০২১ সালের ৩ অক্টোবর কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনে সামিল হন কৃষকরা। আর সেই আন্দোলন চলাকালীন চার কৃষককে গাড়িতে পিষে মারার অভিযোগ ওঠে আশিস মিশ্রের বিরুদ্ধে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। নিহত হন দুই বিজেপি কর্মী, এক গাড়ির চালক এবং একজন সাংবাদিক। পরে মন্ত্রী পুত্রকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আর বুধবার শীর্ষ আদালত আশিসের আট সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করেছে।

এদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজয় মিশ্র টেনির পুত্র আশিসের হয়ে সওয়াল করেন মুকুল রোহতাগি। তিনি জানান, এক বছরেরও বেশ সময় ধরে জেল হেফাজতে রয়েছেন আশিস। কিছুদিন আগেই শীর্ষ আদালত জানিয়েছিল, দোষী প্রমাণিত না হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য জেলে বন্দি রাখা যাবে না অভিযুক্তকে। সেই মন্তব্যকে হাতিয়ার করেই জামিনের আবেদন করেন রোহতাগি। যদিও বিরোধী তরফে বলা হয়, আশিসের মুক্তির ফলে ভীষণ ভুল বার্তা যাবে সমাজের কাছে। তা সত্বেও জামিনের আবেদন মঞ্জুর করে শীর্ষ আদালত।

তবে আশিসকে জামিন দেওয়ার পরই বিভিন্ন মহলে নিন্দার ঝড় উঠেছে। এত ঘৃণ্য অপরাধের পরেও কীভাবে তাঁকে মুক্তি দেওয়া হল তা নিয়ে উঠতে শুরু করেছে একাধিক প্রশ্ন। তবে শুধু লখিমপুরই নয়, এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনার পরও উত্তরপ্রদেশ সহ দেশের একাধিক রাজ্যে এমন ঘটনা ঘটেই চলেছে।

 

 

Previous article১০০ কেজির বেশি গাঁ*জাসহ আটজন গ্রেফতার