ছেলেধরা সন্দেহে বসিরহাটে যুবককে গণপিটুনি! পুলিশের তৎপরতায় বাঁচল প্রাণ

ছেলেধরা সন্দেহে এক মানসিক ভারসাম্যহীন যুবককে ফের গণপিটুনির (Mob Lynching) অভিযোগ! ঘটনাকে কেন্দ্র করে রীতিমতো অশান্ত হয়ে উঠল বসিরহাটের (Basirhat) মাটিয়া। সূত্রের খবর, ওই যুবকের কাঁধে একটি বস্তা ছিল। এলাকায় তাঁর গতিবিধি দেখেই সন্দেহ হয় স্থানীয়দের। এরপরই তাঁকে লাইট পোস্টে বেঁধে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ ওঠে স্থানীয়দের বিরুদ্ধে। এরপর খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই যুবককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

পুলিশ সূত্রে খবর, ওই যুবক অসংলগ্ন কথাবার্তা বলছিলেন। পাশাপাশি এলাকায় গতিবিধি দেখে সন্দেহ হওয়ায় স্থানীয়রা ওই যুবককে বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ। স্থানীয়দের অভিযোগ, তাঁর কাছে একটি বস্তা ছিল। এলাকার এক বাসিন্দার দাবি, ওই যুবকের সঙ্গে দুই খুদে ছিল, সঙ্গে ছিল কয়েকটি খেলনা। এরপরই এলাকার বাসিন্দারা আচমকা যুবককে ঘিরে ফেলে।  আর তা দেখেই ছেলেধরা সন্দেহে যুবককে বেঁধে চলে গণপিটুনি। এমনকি যুবককে একটিও কথা বলার সুযোগ না দিয়েই তাঁর উপর চলে অত্যাচার। এরপর গ্রামবাসীদের একাংশ মাটিয়া থানায় খবর দিলে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, ওই যুবকের বাড়ি দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার শাসন গ্রামে। তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন। যদিও ওই যুবককে পুলিশ গণপিটুনির হাত থেকে বাঁচিয়ে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়। কিন্তু গুরুতর কোনও চোট আঘাত ওই যুবকের শরীরে নেই বলেই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। পুলিশ সূত্রে খবর, ইতিমধ্যে ওই যুবকের বাড়িতে খবর দেওয়া হয়েছে। তাঁর বাড়ির লোকজন এলে তাঁদের হাতেই ওই যুবককে তুলে দেওয়া হবে।

 

Previous articleউত্তরবঙ্গে বন্যার আশঙ্কা, কেন্দ্রকে কাঠগড়ায় তুললেন মমতা
Next articleসেনা কনভয়ে জঙ্গি হামলা, কাঠুয়ায় গুলির লড়াইতে মৃত ৪ জওয়ান