তারকাখচিত মঞ্চে অনুপস্থিত প্রসেনজিৎ, চিরঞ্জিৎ

পঁচিশতম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। তারকাখচিত মঞ্চ। অসুস্থতার কারণে শাহেনশা আসতে না পারলেও, উপস্থিত বলিউডের বাদশা। পাশাপাশি, সোহম, শুভশ্রী, নুসরত, মিমি এমনকী বাদ যাননি রুক্মিণী, শৌরসেনীরাও। ছিলেন গৌতম ঘোষ, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়। রাজ চক্রবর্তী তো থাকবেনই কারণ এবার তিনি দায়িত্বে। কিন্তু অনুপস্থিত প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। উৎসব কমিটির চেয়ারপার্সেনের পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে রাজ চক্রবর্তীকে দায়িত্ব দেওয়ার সময় অবশ্য প্রসেনজিৎ জানিয়ে ছিলেন, তিনি উৎসবের সময় থাকতে পারবেন না। শুটিংয়ে ব্যস্ত থাকবেন। কিন্তু সূত্রের খবর, কলকাতাতেই আছেন বুম্বাদা। তাহলে এলেন না কেন? নজরে পড়েনি তৃণমূল বিধায়ক তথা অভিনেতা চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তীকে। মঞ্চে সাংসদ দীপক অধিকারী থাকলেও বিধায়ক দীপক চক্রবর্তীকে দেখা যায়নি। প্রসেনজিৎ না থাকার পাশাপাশি নজরে পড়ল ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর অনুপস্থিতিও। তিনি অবশ্য কয়েকদিন আগে স্বামী সঞ্জয়ের সঙ্গে ছবি পোস্ট করে বিদেশে জন্মদিন কাটানোর কথা জানিয়েছেন। কিন্তু কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে তিনি আসতে পারতেন না? চোখে পড়েনি প্রসেনজিতের আরেক নায়িকা রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। মুখ্যমন্ত্রী তাঁর ভাষণে জানিয়েছেন, অসুস্থ থাকায় সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় আসতে পারেননি। কিন্তু অভিনেতা-পরিচালক অপর্ণা সেন? তিনি এলেন না কেন?

কিছুদিন ধরেই টলিউডের বিভাজনের রাজনীতির প্রসঙ্গ উঠছে। শাসকদলের পাশাপাশি সমান্তরাল সংগঠন তৈরি করছে বিজেপি শিবির। কিছুদিন আগেই বিজয়া সম্মিলনীতে যাওয়া নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়। সরকারের আয়োজনে অনুষ্ঠিত বিজয় সম্মিলনীতে উপস্থিত না থাকলেও, রাজ্যপালের বিজয়া সম্মেলনীতে উপস্থিত ছিলেন প্রসেনজিৎ, রচনা। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে, তাঁরা জানান, শিল্পী হিসেবে আমন্ত্রণ পেয়েই গিয়েছিলেন। সেখানে অত্যন্ত সম্মানের সঙ্গে আপ্যায়ন করা হয়েছে তাঁদের।
Kiff- এ ছিলেন না দেবশ্রী রায়ও। তাঁর বিজেপিতে যাওয়া না যাওয়া, অমিত শাহকে চিঠি-এই নিয়ে জল্পনা চলছেই। তবে, যে চলচ্চিত্র উৎসব বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির গর্ব, সেখানে প্রসেনজিৎ, ঋতুপর্ণা, অপর্ণা সেনের অনুপস্থিতি চোখে পড়ে বৈকি।