ছেলের লিভারে বাঁচল বাবার প্রাণ

সে যুগে বাবা যযাতির জরা নিজে নিয়ে পুত্র পুরু তাঁকে চির যৌবন দান করেন। আর এ যুগে উনিশ বছরের প্রীতম নিজের লিভারের অংশ দিয়ে বাঁচালেন বাবা রঞ্জিত কুণ্ডুর প্রাণ। বছর আটচল্লিশের রঞ্জিত কুণ্ডু প্রায় একবছর ধরে লিভারের অসুখে ভুগছিলেন। কলকাতা থেকে দিল্লি ছুটে বেরিয়েছে কুণ্ডু পরিবার। কিন্তু লিভার প্রতিস্থাপন ছাড়া অন্য কোনও উপায় বলতে পারেননি চিকিৎসকরা। এদিকে, লিভার প্রতিস্থাপনের জন্য কোনও ডোনার পাওয়া যাচ্ছিল না। এমনকী, ছেলের ভবিষ্যতের কথা ভেবে তাঁকেও লিভারের অংশ দিতে নিষেধ করেন পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু বাবাকে বাঁচাতে কারও কথাই শোনেননি প্রীতম ওরফে রাজ।

বৃহস্পতিবার, সকাল থেকে দীর্ঘ সময় ধরে এসএসকেএম হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের পরে ছেলের লিভারের অংশ কেটে বসানো হয় প্রৌঢ়ের শরীরে। ডাক্তার অভিজিৎ চৌধুরী নেতৃত্ব একটি টিম লিভার প্রতিস্থাপন করে।
বৃদ্ধ বয়সে সহায় সম্বলহীন বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের থেকে সন্তানরা মুখ ফিরিয়েছে। এমনকী, খেতে না দিয়ে, মারধর করে বাড়ি থেকে বের করেছে- এইসব খবরে যখন ভরে যাচ্ছে সংবাদমাধ্যম, তখন নজির গড়লেন উনিশ বছরের তরুণ প্রীতম কুণ্ডু।

আরও পড়ুন-“পশ্চিমবঙ্গে হিংসার ইমেজ তৈরি করেছে”, বিতর্কিত মন্তব্য রাজ্যপালের, তবে মোদির প্রশংসায় পঞ্চমুখ