প্রয়াত বিশিষ্ট সাহিত্যিক- সাংবাদিক নিমাই ভট্টাচার্য

প্রয়াত বিশিষ্ট সাহিত্যিক তথা সাংবাদিক নিমাই ভট্টাচার্য। বৃহস্পতিবার সকালে টালিগঞ্জের বাড়িতে মৃত্যু হয় তাঁর। বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর। পরিবার সূত্রে খবর, বেশ কয়েক বছর ধরেই বার্ধক্যজনিত অসুখে ভুগছিলেন তিনি।

১৯৩১-এর ১০ এপ্রিল বর্তমান বাংলাদেশের মগুরায় জন্ম তাঁর। ১৯৪৮ সালে ম্যাট্রিক পাশ করার পরে কলকাতার রিপন কলেজে ভর্তি হন। সেই সময় থেকেই সাংবাদিকতা শুরু।
‘লোকসেবক’ পত্রিকা দিয়ে সাংবাদিকতা জীবনের শুরু করেন নিমাই ভট্টাচার্য। তারপর দিল্লিতে গিয়ে বেশ কয়েকটি কাগজের হয়ে সংসদ, কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক বিটের রিপোর্টার হিসেবে কাজ করেন তিনি। তিরিশ বছরের সাংবাদিকতা জীবনে জওহরলাল নেহরু, লাল বাহাদুর শাস্ত্রী, ভি কে কৃষ্ণমেনন, মোরারজী দেশাই, ইন্দিরা গান্ধী-সহ অনেকের সান্নিধ্যে আসেন তিনি। জোট নিরপেক্ষ শীর্ষ সম্মেলন, কমনওয়েলথ সম্মেলন-সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী ও তাবড় নেতৃত্বের সফরেসঙ্গী হওয়ার অভিজ্ঞতা ছিল তাঁর।
সাংবাদিকতার পাশাপাশি বাংলা সাহিত্যে একের পর মণিমুক্তো ছড়িয়েছেন তিনি।
তাঁর অন্যতম বিখ্যাত উপন্যাস ‘মেমসাহেব’। এ ছাড়া ‘পিয়াসা’, ‘ম্যারেজ রেজিস্ট্রার’, ‘অষ্টাদশী’, ‘ডিপ্লোম্যাট’, ‘নাচনি’-এর মতো অসংখ্য উপন্যাসে সাধারণ মানুষের কথা বলেছেন নিমাই ভট্টাচার্য। তাঁর বহু উপন্যাস থেকে পরবর্তীকালে বাংলা চলচ্চিত্র নির্মাণ হয়েছে। নিমাই ভট্টাচার্যের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ সাহিত্যিক মহল।