আটজন পুলিশকে খুন করে পগারপার, কানপুরের কুখ্যাত দুষ্কৃতী বিকাশের প্রাসাদ বুলডোজারে গুঁড়িয়ে দিল প্রশাসন

আটজন পুলিশকর্মীকে গুলিতে ঝাঁঝরা করে পালিয়ে গিয়েছে কানপুরের ত্রাস বিকাশ দুবে। উত্তরপ্রদেশের এই কুখ্যাত অপরাধীকে খুঁজতে চিরুনি তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। সিল করে দেওয়া হয়েছে উত্তরপ্রদেশের সমস্ত সীমানা। এরই মধ্যে শনিবার বিকাশের বাড়িতে হানা দেয় পুলিশবাহিনী। বুলডোজার নিয়ে তারা পৌঁছয় শিবরাজপুরের বিকরু গ্রামে। সেখানে প্রকাশ্যে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় কুখ্যাত এই দুষ্কৃতীর প্রাসাদোপম বাড়ি। বিকাশ দুবের বাবা রাজকুমার দুবেকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সিল করে দেওয়া হয়েছে বিকাশ দুবের সমস্ত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট।

উত্তরপ্রদেশের মোস্ট ওয়ান্টেড অপরাধীর তালিকায় এক নম্বরে রয়েছে বিকাশ দুবের নাম। বিজেপির এক মন্ত্রীকে হত্যা সহ প্রায় ষাটটি খুনের মামলা ঝুলছে তার বিরুদ্ধে। কয়েকবার গ্রেফতার হয়েও আইনের ফাঁক গলে বেরিয়ে গিয়েছে সে। গত ২০ বছর ধরে অপরাধের সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছে রাজ্যজুড়ে। অথচ আইনি পথে তাকে শাস্তি দেওয়া যায়নি একবারও। এসবেরই মধ্যে নিজের গ্রামে নিরাপত্তার ঘেরাটোপে মোড়া প্রাসাদের মত বাড়িও বানিয়ে ফেলেছে সে। এবার যোগী সরকারের পুলিশ সেই বাড়ি ভেঙে গুঁড়িয়ে দিল।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সবরকম খবর ও প্রস্তুতি নিয়েই কানপুরে বিকাশের ডেরায় পৌঁছেছিল পুলিশ। কিন্তু পাল্টা খবর পেয়ে বিকাশ আরও বড় প্রস্তুতি নেয়। পুলিশকে বাধা দেওয়ার জন্য রাস্তায় আগে থেকেই সার দিয়ে দাঁড় করানো ছিল বড়বড় ক্রেন ও গাড়ি। সে সব পার করে পুলিশ নির্দিষ্ট গলিতে এসে পৌঁছতেই অতর্কিতে হামলা চলে বিকাশের ছাদ থেকে। সেখান থেকে বৃষ্টির মত গুলি নেমে অাসে। তা সামাল দিতে পারেনি তল্লাশি অভিযানে যাওয়া পুলিশ। তাঁরা লুটিয়ে পড়তে থাকেন মাটিতে। ছাদ থেকে গুলির সঙ্গে সঙ্গে উড়ে আসতে থাকে বিশাল বিশাল পাথরের খণ্ড। এক জন বা দু’জন নন, প্রাণ হারিয়েছেন আট-আট জন পুলিশকর্মী। নিহতদের মধ্যে আছেন এক ডেপুটি কমিশনারও। ফলে বিকাশকে ধরতে মরিয়া উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন। বিকাশের মা সরলা দেবীও এদিন বলেন, আমার ছেলে যা পাপ করেছে তাতে ওকে এনকাউন্টারে মেরে দিক পুলিশ!