পাসোয়ানের দেহ নিয়ে পারিবারিক বিবাদ প্রকাশ্যে

আজই রামবিলাস পাসোয়ান শেষকৃত্য। কিন্তু তার আগেই এলজেপির প্রতিষ্ঠাতার দেহ নিয়ে পারিবারিক টানাপোড়েন প্রকাশ্যে। শুক্রবার রাতে, দিল্লি থেকে রামবিলাস পাসোয়ানের দেহ পাটনায় পৌঁছতেই জনতার বাঁধভাঙা স্রোত দেখা যায়। সেখানে এয়ারপোর্টে উপস্থিত ছিলেন রামবিলাস পাসোয়ানের প্রথম পক্ষের মেয়ে আশা দেবী ও তাঁর স্বামী অনিল সাধু। তাঁদের অভিযোগ, বাবার মরদেহের কাছে যেতে দেওয়া হচ্ছে না তাঁদের। এই নিয়ে বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীলকুমার মোদির গাড়ির সামনে রীতিমতো বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। এই শোকের সময় এইসব বিষয় নিয়ে টানাপোড়েন উচিত নয় বলে বিহারের রাজনৈতিক মহলের।

১৯৬০ সালে রাজকুমারী দেবীর সঙ্গে বিয়ে হয় রামবিলাস পাসোয়ানের। আশা ছাড়াও দম্পতির ঊষা নামের আরেক কন্যা রয়েছেন। ২০১৪ রামবিলাস পাসোয়ানের লোকসভা নির্বাচনের মনোনয়নপত্র ঘিরে সংশয় দেখা দিলে, তিনি জানান ১৯৮১ সালে রাজকুমারীকে ডিভোর্স দিয়ে 1983 সালে তিনি রিনা শর্মা নামে এক এয়ারহোস্টেসকে বিয়ে করেছেন। তাদের এক পুত্র ও এক কন্যা বর্তমান। রামবিলাস-রিনার পুত্র চিরাগই এখন এলজেপি-র প্রধান। তবে দুই পরিবারের মধ্যে বিন্দুমাত্র সদভাব নেই, এই ঘটনা সেটাই প্রকাশ্যে আনল।

এদিকে, রামবিলাস পাসোয়ানকে শেষ শ্রদ্ধা জানানোর ভিড সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন এলজেপি নেতৃত্ব। শুক্রবার রাত থেকে প্রয়াত নেতাকে শ্রদ্ধা জানান মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবের তরফ থেকে আরজেডি বিশেষ শ্রদ্ধা জানায়। শেষ শ্রদ্ধা জানান জেডিইউ, বিজেপি, কংগ্রেস, আরজেডি, সিপিআইএমএল, সিপিআই, সিপিআইএম দলের কেন্দ্রীয় ও রাজ্য নেতৃত্ব।

শনিবার পাটনার জনার্দন ঘাটে শেষকৃত্য বিহারের অন্যতম জনপ্রিয় দলিত নেতার। রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে।

আরও পড়ুন-বোধনে মোদির ভাষণ! ভোটের বাক্সে দোলা দিতে বঙ্গ বিজেপির অনুরোধ