অবসাদে আমির কন্যা, কঙ্গনার মন্তব্য ‘ভাঙা পরিবারের বাচ্চাদের পক্ষে এটা কঠিন’

“ভাঙা পরিবারের বাচ্চাদের জন্য মানসিক অবসাদ খুবই স্বাভাবিক।” সম্প্রতি আমির কন্যা ইরা, ভিডিও বার্তায় একটি স্বীকারোক্তি দেন যে তিনি মানসিক অবসাদের শিকার। সেই প্রসঙ্গেই এমনই মন্তব্য করেছেন কঙ্গনা রানাওয়াত। এমনিতেই বলিউডের ‘কুইন’ এসব বিষয়গুলিকে একটু অন্যভাবে দেখেন। বলিউড সেলিব্রিটিদের সব বিষয়েই নিজের মত প্রকাশ করেন তিনি। তাই ইরার পোস্ট নিয়েও তিনি যে নিজের মন্তব্য উজার করে দেবেন, এ আর নতুন কী।

আরও পড়ুন : ভুয়ো টিআরপি কাণ্ডের জের, ৩ মাস বন্ধ সাপ্তাহিক ভিউয়ারশিপ রেটিং: বার্ক

গত ১০ অক্টোবর, বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষ্যে ইন্স্টাগ্রামে একটি ভিডিওবার্তায় এই স্বীকারোক্তি দিয়েছিলেন অভিনেতা আমির খানের মেয়ে ইরা। তিনি জানান, প্রায় চার বছর ধরে তিনি ক্লিনিকাল ডিপ্রেশন অর্থাৎ মানসিক অবসাদের শিকার। চিকিতসকের পরামর্শ নিয়েছেন তিনি। ইরা জানান, এক বছরের বেশি সময় ধরে মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতনতার বৃদ্ধির জন্য কিছু করতে চাইছিলেন তিনি। কিন্তু বুঝতে পারছিলেন না কী করবেন। তাই ঠিক করেছেন, সকলের সঙ্গে নিজের জার্নিটা শেয়ার করে নেবেন। ভিডিয়োর শেষে ইরা বলেন, “নতুন করে ভাবা যাক। আমার তো সবকিছুই আছে। তাও আমি কেন অবসাদগ্রস্থ। আমি কে মানসিক অবসাদগ্রস্ত হওয়ার?”

ইরার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছিলেন বহু মানুষই। টুইটারে তাঁর প্রশংসার ঝড় বয়েছে। সচরাচর, মানসিক অবসাদ নিয়ে মুখ খুলতে চান না কেউ। সেই জায়গায়, ইরার কাজ সত্যিই প্রশংসনীয়।

আরও পড়ুন : নিয়মভঙ্গের জের, পতঞ্জলি এবং ফ্লিপকার্টকে শোকজ দূষণ নিয়ন্ত্রক পর্ষদের

কিন্তু কুইন সর্বদাই একা চলেন। ইরার এই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে তিনি লেখেন, “ষোলো বছর বয়সে, একা বাস্তবের সঙ্গে লড়াই করেছি। আমার বোনের মুখটা অ্যাসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। তাঁকে আমি একা সামলেছি। সেইসঙ্গে ছিল মিডিয়ার রাগ। হতাশা অনেক কারণে হতে পারে। কিন্তু ভাঙা পরিবারের শিশুদের ক্ষেত্রে এই অবসাদ কাটানো খুব কঠিন। আমাদের পুরনো পরিবারতন্ত্রই ভালো ছিল”

ইরা হলেন আমির ও তাঁর প্রথম স্ত্রী রীনা দত্তের সন্তান। ২০০২ সালে তাঁদের বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছিল। একথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে ইরার মানসিক অবস্থার জন্য তাঁদের দুজনের বিচ্ছেদকেই পরোক্ষে দায়ী করেছেন কঙ্গনা।

আরও পড়ুন : খুলছে সিনেমার দরজা, তবে স্বস্তিতে নেই হল মালিকরা

এই প্রথম নয়। এর আগে দীপিকা পাড়ুকোনের ডিপ্রেশন নিয়েও কথা বলেছেন কঙ্গনা। মনখারাপের দোকান বলে অপমানও করেছেন। আর এবার তাঁর নিশানায় ইরা। এখন দেখার ইরার বাবা এই বিষয়ে কোনও কথা বলেন কীনা।