কৃষি আইনের প্রতিবাদে আমেরিকায় গান্ধী মূর্তি অবমাননা খালিস্থানপন্থীদের

কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষি আইনের(Farm law) প্রতিবাদে কৃষকদের লাগাতার আন্দোলন ঘুম ছুটি দিয়েছে সরকারের। তবে কৃষক আন্দোলন(Farmer protest) শুধু ভারতের মাটিতেই সীমাবদ্ধ নেই। বিশ্বের নানা প্রান্তে এর প্রভাব লক্ষ্য করা গিয়েছে। এই তিন আইনের প্রতিবাদে সম্প্রতি আমেরিকার বসবাসকারী শিখ সম্প্রদায়ের মানুষরা প্রতিবাদে নেমেছিল। এবার সেই প্রতিবাদ নেমে এলো মহাত্মা গান্ধী(Mahatma Gandhi) অবমাননায়। স্থানীয় সময় শনিবার ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে মহাত্মা গান্ধী মেমোরিয়াল প্লাজায় গান্ধী মূর্তিতে হামলা চালালো খালিস্তান পন্থী যুবকরা। গান্ধীজীর মূর্তি ঢেকে দেওয়া হয় খালিস্তানি(Khalisthan) পতাকায়। মূর্তির নিচে নরেন্দ্র মোদির কাটআউট ও প্লাকার্ডে মোদি বিরোধী স্লোগান লেখা হয়। ন্যক্কারজনক এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছে ভারতীয় দূতাবাস।

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন ধরেই ভারতের কৃষি আইনের প্রতিবাদে নিউইয়র্ক, নিউজার্সি, পেনসিলভেনিয়া সহ আমেরিকার নানা প্রান্ত থেকে বহু মানুষ জড়ো হন ওয়াশিংটন ডিসিতে। কেন্দ্রের কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে লাগাতার ভাবে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। সেই আন্দোলনে সম্প্রতি বেশ কয়েকজন খালিস্তানপন্থী যুবক ভিড় করে। এরপরই হিংসাত্মক রূপ নেয় আন্দোলন। ওই এলাকায় অবস্থিত গান্ধী মূর্তিতে ভাঙচুর চালায় তারা। বেশ কিছুক্ষণ ধরে গান্ধী মূর্তি অবমাননার পর ঘটনাস্থলে পৌঁছয় ওয়াশিংটন পুলিশ ও আমেরিকার সিক্রেট সার্ভিসের সদস্যরা। ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হতেই এলাকা থেকে সরে যায় দুষ্কৃতীরা। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ভারতীয় দূতাবাস।

আরও পড়ুন:প্রতিবাদ করায় শাসকদের রোষের মুখে সাংবাদিক, হল ফাঁসি

দূতাবাসের তরফে বিবৃতিতে জানানো হয়েছে শান্তির প্রতীক হিসেবে বিশ্ববন্দিত ব্যক্তির বিরুদ্ধে দুষ্কৃতীদের এই কাজের কঠোর নিন্দা করছে ভারত। পাশাপাশি এই ঘটনায় অভিযুক্তদের খুঁজে বের করে তাদের শাস্তি দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে মার্কিন প্রশাসনের কাছে। উল্লেখ্য, ২০০০ সালের ১৬ ই ডিসেম্বর ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ি মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপস্থিতিতে এই মূর্তি উন্মোচন করেছিলেন।