যোগীর জন্মদিনে শুভেচ্ছাবার্তা নেই মোদি-শাহের, সম্পর্কে চিড় ধরেছে অনুমান রাজনৈতিক মহলের

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হলেও বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের তালিকা অন্যতম নাম যোগী আদিত্যনাথ(Yogi Adityanath)। দেশব্যাপী তাঁর ফ্যান ফলোয়ার্সের সংখ্যাও নিতান্ত কম নয়। মোদি- শাহের সঙ্গেই এক সারিতে উচ্চারিত হন তিনি। দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির(Narendra Modi) অন্যতম প্রিয় পাত্রও বটে। এহেন যোগী আদিত্যনাথের জন্মদিনে কোনওরকম শুভেচ্ছাবার্তা এলো না ‘প্রিয়’ নরেন্দ্র মোদীর থেকে। শুভেচ্ছা বার্তা দিলেন না অমিত শাহও। অথচ নিয়ম করে প্রতিবছরই দাপুটে এই নেতাকে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ বছর এই ব্যতিক্রমে স্বাভাবিকভাবেই সিঁদুরে মেঘ দেখছে রাজনৈতিক মহল। পাশাপাশি অনুমান করা হচ্ছে করোনা মোকাবিলার সহ আরও একাধিক ইস্যুতে যোগীর ওপর কার্যত ক্ষুব্দ শীর্ষ বিজেপি নেতৃত্ব। যার জেরেই এই ঘটনা।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘনিষ্ঠ বৃত্তে যে কয়েকজন মুখ্যমন্ত্রী রয়েছেন তার মধ্যে অন্যতম হলেন যোগী আদিত্যনাথ। শনিবার জন্মদিন ছিল যোগী আদিত্যনাথের। তবে তাঁর জন্মদিনে কোনরকম টুইট করতে দেখা যায়নি নরেন্দ্র মোদিকে। টুইট করেননি অমিত শাহও। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই রীতিমতো গুঞ্জন শুরু হয়েছে উত্তরপ্রদেশ বিজেপির অন্দরে। অনুমান করা হচ্ছে, করোনা মোকাবিলায় যোগীর কাজে প্রচন্ড অসুন্তুষ্ট প্রধানমন্ত্রী। করোনা মোকাবিলায় টিকার যোগানে কোনরকম কার্পণ্য না থাকলেও টিকাকরনে সরকারের ব্যর্থতা ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসে গিয়েছে। শুধু তাই নয়, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে উত্তরপ্রদেশের হাল যে কার্যত বেহাল সেটাও ভালরকম জানেন প্রধানমন্ত্রী। যোগীজির রাজ্য থেকে গঙ্গায় শয়ে শয়ে লাশ ভেসে যাওয়ায় দেশ তো বটেই আন্তর্জাতিক মহলে মুখ পুড়েছে নরেন্দ্র মোদির।

উত্তরপ্রদেশে বিজেপির ইমেজ এতটাই খারাপ অবস্থায় গিয়ে পৌঁছেছে যে এক বছর পর এই রাজ্যে নির্বাচন থাকলেও এখন থেকেই ইমেজ সামলাতে দফায় দফায় বৈঠক করতে হচ্ছে আরএসএস ও বিজেপিকে। আর এসব কিছুর পিছনে আঙুল উঠছে যোগী আদিত্যনাথের দিকে। এমনকি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে আসন্ন নির্বাচনে হয়তো যোগী আদিত্যনাথকে মুখ্যমন্ত্রী মুখ নাও করতে পারে শীর্ষ নেতৃত্ব। এই সমস্ত কিছুর মাঝেই যোগীর জন্মদিনে মোদীর শুভেচ্ছা বার্তা না আসা জল্পনায় বাড়তি ইন্ধন যোগাচ্ছে।

আরও পড়ুন:ফের হাসপাতালে ভর্তি হলেন অভিনেতা দিলীপ কুমার

যদিও জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা প্রসঙ্গে উত্তরপ্রদেশের গেরুয়া শিবিরের তরফে দাবি করা হচ্ছে, টুইটে শুভেচ্ছাবার্তা না জানালেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ফোন করেই মুখ্যমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সাফাই দিতে তাদের আরও দাবি, সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রী কোনও নেতাকেই জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে টুইট করেননি। এই তালিকায় দলীয় নেতা নীতিন গডকরী, মনোহর লাল খট্টর থেকে শুরু করে কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটও রয়েছেন, যাদের টুইটবার্তায় শুভেচ্ছা জানাননি প্রধানমন্ত্রী।

Advt