২০১৭ সালের TET পরীক্ষায় যারা বসতে পারেননি, তাঁদের জন্যই নতুন করে পরীক্ষার  নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

২০১৭ সালে প্রায় দু লাখ পরীক্ষার্থী প্রাইমারি টেট পরীক্ষা দিয়েছিল । ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি তা বাতিল হচ্ছে না। এই পরীক্ষার ফল বের হবে।

যদিও এই বিষয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে । বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কামাল হোসেন জানিয়েছেন ,মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের রায়ের ভুল ব্যাখ্যা হচ্ছে । যা জানার পর পড়ুয়ারা বিভ্রান্ত ।
রীতিমতো ক্ষুব্ধ কামাল স্যার বলেন, কয়েক দিন ধরে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম যে খবর পরিবেশন করছে তা সঠিক না। উল্টে মামলাকারীদের স্পেশাল রিট পিটিশন মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট খারিজ করে দিয়েছে। অর্থাৎ নতুন যে পরীক্ষা প্রাইমারি টেট এর জন্য সেটা ২০২২ সালের ৩১ মার্চের মধ্যে হবে বলে সরকার পক্ষের আইনজীবী মহামান্য আদালতের কাছে পেশ করেছেন । এবং মাননীয় বিচারপতিরা তা রেকর্ড করেছেন।
ওই পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন দেশের শীর্ষ আদালত। বিচারপতি আব্দুর নাজির এবং বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারির ডিভিশন বেঞ্চ এই নির্দেশ দিয়েছে রাজ্যকে।তাই পড়ুয়াদের উদ্দেশে কামাল স্যারের পরামর্শ, কোনও ভাবে বিভ্রান্ত না হয়ে মহামান্য আদালত এবং রাজ্য সরকারের ওপর বিশ্বাস রেখে এখনই প্রস্তুতি শুরু করুক পড়ুয়ারা। কারণ, পুজোর আগে বা পরে এই পরীক্ষা হবে।

টেট নেওয়ার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল ২০১৭ সালে। ফর্ম সেই সময়ে জমা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই পরীক্ষা নেওয়া হয় ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে। এই ৪ বছরের মধ্যে আরও যাঁরা যোগ্য হয়েছেন, তাঁদেরও পরীক্ষায় বসতে দেওয়ার জন্য আবেদন জানিয়ে করা হয়েছিল মামলা। কলকাতা হাই কোর্টে বিষয়টির নিষ্পত্তি না হওয়ায় আবেদন করা হয়েছিল সুপ্রিম কোর্টে। তার পরই দেশের শীর্ষ আদালত ২০২২ সালের মার্চ মাসের মধ্যে পরীক্ষা নিতে বলেছে। পরীক্ষার ফল প্রকাশ এবং নিয়োগ প্রক্রিয়াও দ্রুত করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্যকে।
রাজ্যে D.Led উত্তীর্ণরা, যাঁরা ২০১৭ সালের TET পরীক্ষায় বসতে পারেননি, তাঁদের জন্যই নতুন করে TET পরীক্ষা নিতে হবে বলে এদিন জানায় বিচারপতি আব্দুর নাজির ও বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারির ডিভিশন বেঞ্চ।