শৈত্য প্রবাহের জেরে কাঁপছে উত্তরভারত, রাজধানীতে ঠান্ডা ১৭ বছরের সর্বোচ্চ

তুষারপাত, সঙ্গে বৃষ্টি। প্রবল শৈত্যপ্রবাহে কাঁপছে উত্তরভারত। ঠান্ডায় কাঁপছে রাজধানী দিল্লি সহ সারা উত্তরভারত। আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর আগামী দুদিন রাজস্থান, আসাম, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, মণিপুর, মিজোরাম এবং ত্রিপুরায় ঘন কুয়াশার সম্ভাবনা রয়েছে। একই সময়ে, আগামী তিন দিন পাঞ্জাব, হরিয়ানা, চণ্ডীগড় এবং দিল্লিতে এবং আগামী পাঁচ দিন উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ, সিকিমে ঘন কুয়াশা দেখা যাবে। এছাড়াও, আগামী দুই দিনের মধ্যে, পশ্চিম উত্তরপ্রদেশ এবং পশ্চিম মধ্যপ্রদেশের বিচ্ছিন্ন অংশগুলোতে শৈত্যপ্রবাহের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।

পাশাপাশি আগামী দুই দিনের মধ্যে, পশ্চিম উত্তরপ্রদেশ এবং পশ্চিম মধ্যপ্রদেশের বিচ্ছিন্ন অংশগুলোতে শৈত্যপ্রবাহের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। আবহাওয়া দফতর আরও জানিয়েছে যে শনিবার পশ্চিমবঙ্গ এবং সিকিমে হালকা বা মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী ৪-৫ দিনের মধ্যে তামিলনাড়ু, পুদুচেরি, কেরালায় হালকা বা মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। শনিবার দেশের রাজধানী দিল্লির সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একই সঙ্গে ঘণ্টায় ৭-৮ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইছে। ঠাণ্ডা মাথায় রেখে দিল্লির অনেক জায়গায় রাত্রিকালীন আশ্রয়কেন্দ্র তৈরি করা হয়েছে। লোধি রোড এলাকায় একটি নৈশ আশ্রয়কেন্দ্র মানুষকে ঠান্ডায় আশ্রয় দিচ্ছে। এর তত্ত্বাবধায়ক মনোজ কুমার জয়সওয়াল বলেন, এখানে পর্যাপ্ত কম্বল পাওয়া যায়। মানুষকে তিন বেলা খাবার দেওয়া হচ্ছে। করোনার কারণে নিয়মিত মেডিকেল চেকআপও করা হচ্ছে।

এদিকে দিল্লির বাতাসের মানের কোনো উন্নতি নেই। শনিবার এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স ৩৩৯ এ রেকর্ড করা হয়েছে। এর ফলে বাতাসের গুণমান ‘খুব খারাপ’ বিভাগে পৌঁছেছে। একই সঙ্গে কাশ্মীরে তীব্র ঠান্ডার প্রকোপ অব্যাহত রয়েছে। শুক্রবার অধিকাংশ স্থানেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রার পতন রেকর্ড করা হয়েছে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শুক্রবার রাতে উপত্যকার বেশিরভাগ এলাকায় তাপমাত্রা কমেছে। শুধুমাত্র উত্তর কাশ্মীরের গুলমার্গ রিসোর্টে আগের দিনের তুলনায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। সেখানে, তাপমাত্রা মাইনাস ১০.৫ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছিল, যা আগের দিন মাইনাস ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল। টানা ছয় দিন ধরে গুলমার্গের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা মাইনাস ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার কম।

আরও পড়ুন- অভ্যন্তরীণ সংঘাত বন্ধে কড়া বার্তা পার্থর, ভোট পিছিয়ে দেওয়াকেও সমর্থন তৃণমূল মহাসচিবের

Previous articleVirat Kohli: টেস্ট অধিনায়কত্ব ছাড়লেন বিরাট কোহলি, টুইট করে জানালেন নিজেই