জনবিচ্ছিন্ন বিজেপির হারের বর্ষপূর্তি: তীব্র ভাষায় ধুয়ে দিলেন কুণাল

আগে ছিল আদি-তৎকাল-পরিযায়ী। এখন আবার যোগ হয়েছে 'সুকান্ত বিজেপি', 'দিলীপ বিজেপি'। তাদের নিজেদের অন্তর্দ্বন্দ্বের ফলেই বাংলায় ভরাডুবি হয়েছে গেরুয়া শিবিরের।

ফের তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদকের কুণাল ঘোষের (Kunal Ghosh) নিশানায় গেরুয়া শিবির। রবিবাসরীয় দুপুরে দুটি ভিডিও বার্তায় রাজ্য বিজেপিকে (BJP) ধুয়ে দিয়েছেন তিনি। সরাসরি বিজেপিকে ‘জনবিচ্ছিন্ন’ আখ্যা দিয়ে কুণাল বলেন, গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জর্জরিত বিজেপি। আগে ছিল আদি-তৎকাল-পরিযায়ী। এখন আবার যোগ হয়েছে ‘সুকান্ত বিজেপি’, ‘দিলীপ বিজেপি’। তাদের নিজেদের অন্তর্দ্বন্দ্বের ফলেই বাংলায় ভরাডুবি হয়েছে গেরুয়া শিবিরের।

বিজেপির কর্মসূচিকে তীব্র কটাক্ষ করে কুণাল বলেন, ২০২১-এ ভরাডুবি হয়েছে বিজেপির। তৃতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল (TMC)। আর সেই ভরাডুবির বর্ষপূর্তি পালনে উদ্যোগ নিয়েছেন বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব। নিজেদের গড় বলে আসানসোলকে (Asansole) দাবি করত গেরুয়া শিবির। লোকসভা উপনির্বাচনের রেকর্ড ভোটে জিতেছেন তৃণমূল প্রার্থী। বালিগঞ্জ উপনির্বাচনেও বিজেপি প্রার্থীর জামানত জব্দ হয়েছে। এর কারণ মানুষের পাশে বিজেপি থাকে না। তারা জনবিচ্ছিন্ন বলে অভিযোগ করেছেন কুণাল।

একই সঙ্গে বারাসাতে বিজেপির সাংগঠনিক জেলা থেকে ১৫জন সদস্যের ইস্তফা প্রসঙ্গে তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক বলেন, এটা বিজেপির দলীয় বিষয়। তবে যাঁরা কোনও সময়ে বিভ্রান্ত হয়ে বিজেপিতে গিয়েছিলেন, এখন তাঁরা দলের স্বরূপ ফুঝতে পেরে বেরিয়ে আসতে চাইছেন। কোন শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ বেঁচে থেকে থাকতে পারে না। অনেকে ইতিমধ্যেই ইস্তফা দিয়ে দিয়েছেন। অনেকে আবার নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছেন বিজেপির কর্মসূচি থেকে। বিজেপির সাংসদের এমন অবস্থা যে বাংলার জন্য দরবার করে নিজেদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের থেকে দাবি আদায় করতে পারছেন না। বাধ্য হয়ে আর্জি জানাতে হচ্ছে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। এই পরিস্থিতিতে শুভবুদ্ধি সম্পন্ন কেউই রাজ্য বিজেপিতে থাকতে পারবে না বলেই তীব্র আক্রমণ করেছেন কুণাল ঘোষ।

গেরুয়া শিবিরের সঙ্কট: বেসুরো শিল্পী ঋদ্ধি, গণইস্তফা বারাসত সাংগঠনিক জেলায়

Previous articleSantosh Trophy: সন্তোষ ট্রফি ফাইনালের আগে বাংলাকে শুভেচ্ছা মৃদুল বন্দোপাধ্যায়, গৌতম সরকারদের