অসম ডুবছে, মুখ্যমন্ত্রী ব্যস্ত মহারাষ্ট্রে সরকার ফেলতে: তীব্র আক্রমণ অভিষেকের

ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে অত্যন্ত বেহাল অবস্থা অসমবাসীর(Assam)। জল যন্ত্রণায় নাকাল রাজ্যের প্রায় ২০ লক্ষ মানুষ। তবে গুরুতর এই পরিস্থিতিতে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর পরিবর্তে অসমের মুখ্যমন্ত্রী ব্যস্ত বিদ্রোহী বিধায়কদের আপ্যায়ণে। এরই প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকালে রাস্তায় নামে অসম তৃণমূল। এবার সেই ইস্যুতেই অসম মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানালেন তৃণমূল(TMC) সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়(Abhisekh Banerjee)।

মহারাষ্ট্রের শিবসেনা বিধায়কদের হাইজ্যাক করে যেভাবে অসমে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে সেই ঘটনার নিন্দা করে এদিন টুইটে তোপ দাগেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি লেখেন, “অসম রাজ্য যখন ডুবছে তখন সেদিকে নজর না দিয়ে অসম সরকার ব্যস্ত দিল্লির নির্দেশে বিদ্রোহী বিধায়কদের আপ্যায়ণে। মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা যদি মহারাষ্ট্র সরকার ফেলার কথা না ভেবে একটু বেশি করে বন্যা দুর্গতদের কথা ভাবতেন, তাহলে হয়তো ভাল হত।” একইসঙ্গে তিনি আরও যোগ করেন, “দিল্লি নিয়ন্ত্রিত সরকারের কাছে কোনটা বেশি স্পষ্ট তা আরও ভালোভাবে স্পষ্ট হয়ে গেল।”

ঘোড়া কেনাবেচার অঙ্কে সরকার ফেলতে মহারাষ্ট্রে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিজেপি। ৪০ জনের বেশি বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে প্রথমে গুজরাট ও তারপর অসমের গুয়াহাটিতে রিসর্ট বন্দি করা হয়েছে বিধায়কদের। তবে বন্য বিধ্বস্ত অসমের বর্তমান পরিস্থিতি অত্যন্ত শোচনীয়। জল যন্ত্রণায় নাকাল রাজ্যের প্রায় ২০ লক্ষ মানুষ। জলের তোড়ে ডুবে গিয়েছে ঘরবাড়ি, হারিয়ে গিয়েছে শেষ সম্বলটুকুও। না আছে আশ্রয়, না আছে অন্ন। পরিস্থিতি লাগাতার খারাপ থেকে খারাপতর হচ্ছে। এই অবস্থায় অসমের মুখ্যমন্ত্রীর ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। যে রিসর্টে বিধায়কদের হাইজ্যাক করে রাখা হয়েছে তার বাইরেই এদিন বিক্ষোভ দেখাতে দেখা যায় তৃণমূলকে। বিক্ষোভে উপস্থিত ছিলেন, দলের রাজ্য সভাপতি রিপুণ বোরা ওই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন। তৃণমূল কর্মীদের সেই বিক্ষোভ দমন করতে পুলিশ দিয়ে কর্মীদের গ্রেপ্তার করিয়েছে অসম সরকার। এই অবস্থায় অসম সরকারের বিরুদ্ধে তিব্র আক্রমণ শানালেন অভিষেক।


Previous articleপ্রাথমিক শিক্ষকের ঋণ মঞ্জুর করতে টেট পাশের নথি চাইল ব্যাঙ্ক