নন্দীগ্রামে তৃণমূলের ‘চাটাই বৈঠকে’ ব্যাপক সাড়া, চোখে পড়ার মতো উপস্থিতি মহিলাদের

প্রথমদিনেই নন্দীগ্রামে তৃণমূলের (TMC) ‘চাটাই বৈঠকে’ ব্যাপক সাড়া। রবিবার, নন্দীগ্রামের (Nandigram) তিন জায়গায় এমন কর্মসূচি পালিত হয়। এদিন সকালে প্রথম কর্মসূচি হয় নন্দীগ্রাম ১ ব্লকের সামসাবাদ অঞ্চলের পুশকুন্ডি পাড়ার মাঠে। সেখানে চাটাই পেতে বসেন নেতারা মানুষের কথা শোনেন। স্থানীয়দের নিয়ে বৈঠকী আড্ডার আদলে এই সভা হয়। ছিলেন তৃণমূলের তমলুক সাংগঠনিক জেলার চেয়ারম্যান পীযূষ ভূঁইয়া, নন্দীগ্রাম ১ ব্লক তৃণমূলের সভাপতি বাপ্পাদিত্য গর্গ (Bappadityi Garg) ও স্থানীয় অঞ্চল ও বুথ স্তরের নেতৃত্ব।

রাজ্যের চালু থাকা বিভিন্ন সামাজিক প্রকল্প গ্রামবাসীরা ঠিক মতো পাচ্ছেন কি না, অথবা কোথায় কোথায় অসুবিধা রয়েছে সে সম্পর্কে বিশদে আলোচনা হয়। গ্রামবাসীদের থেকে স্থানীয় রাস্তা ও পানীয় জলের দাবির কথা উঠে আসে। দুয়ারে সরকার ক্যাম্প অথবা পঞ্চায়েত থেকে কীভাবে এই সমস্ত সমস্যা সমাধান করা যায় তা সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে এই বৈঠকে আলোচিত হয়। এই সভা ঘিরে মানুষের বিপুল উৎসাহ চোখে পড়ে। প্রচুর মহিলা কর্মী-সমর্থক সভায় যোগ দেন।

এরপর এদিন বৈঠক হয় হরিপুর অঞ্চলের দেবীপুর গ্রামে। স্থানীয় হাইস্কুল লাগোয়া মাঠে আলোচনা বসে। এছাড়াও নন্দীগ্রামের ভেকুটিয়া অঞ্চলের বারকাণ্ডপসরা গ্রামে এমন আলোচনা সভা হয়। গ্রামীণ এলাকার পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পে টাকা আটকে রাখার বিষয়টি তৃণমূলের নেতৃত্বরা তুলে ধরেন। বেশ কিছু সমস্যার বিষয়ে নেতৃত্ব এদিন নোট নেন। প্রথমদিনই তিনটে সভা বেশ ফলপ্রসূ হয়েছে বলে দাবি তৃণমূলের। এদিন নন্দীগ্রাম ১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি বাপ্পাদিত্য গর্গ বলেন, “তৃণমূল নেতৃত্বের উদ্দেশ্য হল সাধারণ মানুষের কথাকে গুরুত্ব সহকারে শোনা। সেই সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের উন্নয়নমূলক কাজের কথা গ্রামবাসীদের আরও একবার মনে করিয়ে দেওয়া।”

নন্দীগ্রাম ২ নম্বর ব্লক এর অন্তর্গত খোদামবাড়ি ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের সমস্ত বুথের বুথ সভাপতি, সুপারভাইজার, আঞ্চলিক নেতৃত্ব স্থানীয়দের নিয়ে নিয়ে আড্ডার মেজাজে সভা করেন। ছিলেন নন্দীগ্রাম দু নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি অরুণাভ ভুঁইয়া (Arunabh Bhuiya)-সহ নন্দীগ্রাম দু নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যান্য নেতৃত্ব ও আঞ্চলিক নেতৃত্ব বৃন্দ ও কর্মী সমর্থক বৃন্দ।

কারও কোনও সমস্যা, অভিযোগ, মতামত থাকলে তা নথিবদ্ধ করা হচ্ছে এই চাটাই বৈঠকে। এভাবেই সারা নন্দীগ্রাম জুড়ে আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে নিবিড় জনসংযোগ করতে চাইছে শাসকদল। এদিন বৈঠকে মহিলারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

আরও পড়ুন- সোমবার বিধানসভায় কর্পোরেশন বিল পেশ, অধিবেশনে গোলমালের পরিকল্পনা বিরোধীদের!

 

 

Previous articleসোমবার বিধানসভায় কর্পোরেশন বিল পেশ, অধিবেশনে গোলমালের পরিকল্পনা বিরোধীদের!