দুর্গাপুরে কয়লা মাফিয়ার হোটেলেই রাত্রিবাস, ইসিএল কর্তাদের নিয়ে বৈঠকে খোদ কয়লা মন্ত্রীর

কেন্দ্রীয় কয়লা মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশি অবৈধ কয়লা কারবারের বেতাজ বাদশা বলে পরিচিত রাজু ঝাঁয়ের বিলাসবহুল হোটেলে ওঠেন। বুধবার সন্ধ্যায় ইসিএলের শীর্ষ আধিকারিকদের নিয়ে রাজুর হোটেলেই গুরুত্বপূর্ণ রিভিউ মিটিং করেন

ফের প্রকাশ্যে বিজেপির দ্বিচারিতা। কয়লাপাচার কাণ্ড নিয়ে যখন একের পর এক কুৎসা, অপপ্রচার, মিথ্যাচার করে বেড়াচ্ছেন এ রাজ্যের বিজেপি নেতারা, ঠিক তখনই বাংলায় এসে সটান এক কয়লা মাফিয়ার হোটেলে উঠলেন কেন্দ্রীয় কয়লা মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশি। বিষয়টি নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। শুধু ওঠাই নয়, সেই হোটেলে রাত্রিবাস, এমনকী ইসিএলের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকও করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন:দমদম-নৈহাটি লাইনে একাধিক ট্রেন বাতিল, সপ্তাহান্তে যাত্রী ভোগান্তি

গত, বুধবার দু’দিনের সরকারি সফরে দুর্গাপুর আসেন কেন্দ্রীয় কয়লা ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশি। সেখানে তিনি অবৈধ কয়লা কারবারের বেতাজ বাদশা বলে পরিচিত রাজু ঝাঁয়ের বিলাসবহুল হোটেলে ওঠেন। বুধবার সন্ধ্যায় ইসিএলের শীর্ষ আধিকারিকদের নিয়ে রাজুর হোটেলেই গুরুত্বপূর্ণ রিভিউ মিটিং করেন। সেই মিটিংয়ে নেওয়া হয় একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। ওই হোটেলেই রাত্রিবাস করেন মন্ত্রী।
দু’দশকেরও বেশি সময় ধরে শিল্পাঞ্চলের অবৈধ কয়লা কারবারের বেতাজ বাদশা রাজু ঝাঁ। বাম আমল থেকে এখনও পর্যন্ত রাজু একাধিকবার পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে। তার নামে অসংখ্য মামলা ঝুলছে। রাজু ঝাঁয়ের সঙ্গে বিজেপির ঘনিষ্ঠতা গত বিধানসভা ভোটের আগে থেকেই। গত বিধানসভা ভোটে একাধিকবার বিজেপির প্রচারে তাকে দেখা গিয়েছিল। যা নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েছিল বিজেপি। শিল্পাঞ্চলে ইসিএল ও সেইলের একাধিক বিলাসবহুল অতিথি নিবাস থাকতেও কেন সেই কুখ্যাত মাফিয়ার হোটেলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী উঠলেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বেগতিক বুঝে বিজেপি দায় চাপিয়েছে ইসিএলের ঘাড়ে।

হোটেলটি রাজু ঝাঁয়ের নামে আর নেই, এই বলে বিতর্কে জল ঢালার চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু গত বছর দুর্গাপুর পুরসভা থেকে ইস্যু করা হোটেলের ট্রেড লাইসেন্সে রাজুর নাম রয়েছে। খুব স্বাভাবিক ভাবেই রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠছে, কয়লা মন্ত্রীরা সরকারি অতিথি নিবাসেই থাকেন। কেন ওই বিশেষ হোটেলে বর্তমান কয়লা মন্ত্রীকে থাকতে হল?

Previous articleBreakfast news : ব্রেকফাস্ট নিউজ