৩৭০ ধারা প্রত্যাহার বৈধ: কাশ্মীর ইস্যুতে সুপ্রিম রায়ে ক্ষুব্ধ পাকিস্তান

সোমবার সুপ্রিম কোর্টের তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার সম্পূর্ণরূপে বৈধ। আদালতের এই নির্দেশের পর চেনা অঙ্কে বিরোধিতায় নামল পাকিস্তান। দেশের শীর্ষ আদালতের নির্দেশকে একতরফা ও বেআইনি বলে তোপ দাগল ইসলামাবাদ। এমনই এই রায়ের আইনি মূল্য নেই বলেও সরব হল পাকিস্তান।

বর্তমানে পাকিস্তানে চলছে কেয়ারটেকার সরকার। সেই সরকারের বিদেশমন্ত্রী আব্বাস জিলানি এদিন লেখেন, “২০১৯ সালে ৫ আগস্ট ভারত যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তা একতরফা ও বেআইনি ছিল। আন্তর্জাতিক আইন এই পদক্ষেপ স্বীকার করে না। ভারতের শীর্ষ আদালত যে রায় দিয়েছে তার কোনও আইনি মূল্য নেই। রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব অনুযায়ী কাশ্মীরিদের সম্পূর্ণ অধিকার রয়েছে নিজেদের ভাগ্য নিয়ন্ত্রণ করার।” রায় বিরোধিতায় মুখ খুলেছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফও। তাঁর বক্তব্য, “ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে। রাষ্ট্রসংঘের প্রস্তাবের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছে। লক্ষ লক্ষ কাশ্মীরিদের আত্মত্যাগের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে সেদেশের শীর্ষ আদালত।”

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নেয় কেন্দ্রীয় সরকার। পাশাপাশি রাজ্যের মর্যাদা ছিনিয়ে নিয়ে এটিকে পৃথক দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করে দেওয়া হয়েছিল। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর থেকে অনেক বিক্ষোভ-প্রতিবাদ হয়েছে ভূস্বর্গে। অশান্তি থামাতে বিপুল সংখ্যক সেনা সেখানে মোতায়েন করা হয়। বন্ধ রাখা হয় ইন্টারনেট পরিষেবাও। কাশ্মীর ইস্যুতে বিরোধীদের বাণে বারবার বিদ্ধ হয়েছে কেন্দ্রের শাসকদল। অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক স্তরে ভারতের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানায় পাকিস্তান। কিন্তু তাতে কর্ণপাত করেনি নয়াদিল্লি। সাফ জানানো হয়, এটা সম্পূর্ণ দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এক্ষেত্রে কোনও তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ বরদাস্ত করা হবে না। এবারও অনধিকার চর্চার অভ্যাস জারি রেখে কাশ্মীর ইস্যুতে নাক গলাতে সক্রিয় হয়ে উঠল পাকিস্তান।

Previous articleব্রিগেডে গীতাপাঠের দিন রাজ্যজুড়ে টেট পরীক্ষা বাতিল করতে আদালতে দিলীপ ঘোষ
Next articleটাকার উৎস কী? জ.বাবদিহি চাইল কংগ্রেস