করোনা ভ্যাকসিনে অগ্রাধিকার পাবেন কারা? তালিকা তৈরি করল সরকার

সচেতনতাকে সঙ্গী করেই বর্তমানে করোনার বিরুদ্ধে চলছে লড়াই। গোটা পৃথিবীর পাশাপাশি ভারতও অপেক্ষা করে রয়েছে ভ্যাকসিনের। এহেন পরিস্থিতিতে এবার করোনা ভ্যাকসিন ভারতের হাতে এলে কোনরূপ রূপরেখায় তা বিতরণ করা হবে সেটা ঠিক করে ফেলল সরকার। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বিপদ সীমার মধ্যে থাকা প্রায় ৩০ কোটি মানুষকে কোভিড-১৯ টিকার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এর জন্য প্রয়োজন পড়বে ভ্যাকসিনের প্রায় ৬০ কোটি ডোজ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফের জানা গিয়েছে, সরকারের হাতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধক ভ্যাকসিন এলে তা সর্বপ্রথম দেওয়া হবে ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ, পুরসভা, পঞ্চায়েত এবং অত্যাবশ্যকীয় সরকারি পরিষেবা যুক্ত ব্যক্তিদের। এর পাশাপাশি ৫০ বছর বয়সের বেশি দেশের প্রায় ২৬ কোটি মানুষ এই ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন। একই সঙ্গে কো-মর্বিডিটি রয়েছে এমন যেকোনও বয়সী মানুষ অগ্রাধিকার পাবেন এই টিকা নেওয়ার ক্ষেত্রে। সব মিলিয়ে ভ্যাকসিন হাতে আসার আগেই তা বিতরণের ক্ষেত্রে বাড়তি নজরদারি দিয়ে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে সরকার।

আরও পড়ুন: বেলেঘাটা বিস্ফোরণ: রাজ্যপালের কাছে ফের বিজেপি

উল্লেখ্য, চলতি সপ্তাহেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন জানিয়েছিলেন ২০২১-এর শুরুতেই একাধিক করোনা টিকা গবেষণা ও উৎপাদনের ক্ষেত্রে সাফল্যের মুখ দেখবে ভারত। মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিনি দাবি করেন, ‘আশা করছি আগামী বছরের শুরুতেই একাধিক জায়গা থেকে করোনার প্রতিষেধক পাওয়া যাবে। ফল স্বরূপ আমাদের বিশেষজ্ঞ দল ইতিমধ্যেই টিকা উৎপাদন এবং বন্টন প্রক্রিয়ার রূপরেখা তৈরি করে ফেলেছেন। প্রসঙ্গত, করোনা ভ্যাকসিনের টিকা আবিষ্কার ও ট্রায়ালে ইতিমধ্যেই কাজ শুরু করে দিয়েছে ভারত বায়োটেক, সেরাম ইনস্টিটিউটের মতো একাধিক সংস্থা। সম্প্রতি আইসিএমআর-এর সাহায্যে ভারত থেকে তৈরি সম্ভাব্য করোনা ভ্যাকসিন কোভ্যাক্সিনের মানবদেহে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালও শুরু হয়েছে। পাশাপাশি শনিবারই রাশিয়ার তৈরি ভ্যাকসিন ভারতে মানব ট্রায়ালে অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে সরকার।